করিনার জীবনের এই একটা ভুল সিদ্ধান্তই বদলে দিয়েছে একাধিক বলিউড নায়িকার জীবন

Films Kareena Kapoor Rejected

বলিউড (Bollywood) অভিনেত্রী করিনা কাপুর খান পতৌদির (Kareena Kapoor) গ্ল্যামার ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির চর্চার বিষয়বস্তু। তারকা পরিবারের সন্তান, তারকা পরিবারের গৃহিণী করিনা কাপুর নিজেও একজন তারকা। ৯০ দশকের শেষভাগের দিকেই বলিউডে আত্মপ্রকাশ ঘটে করিনার। একের পর এক হিট ছবি তিনি উপহার দিয়েছেন দর্শককে। তবে দর্শক এটা জানেন না যে করিনা ছবি করেন ভীষণ বেছে বেছে।

আর তার এই স্বভাবের কারণেই কার্যত বলিউড একের পর এক নতুন নায়িকাকে পেয়েছে। আজ যারা বলিউডের প্রথম সারির নায়িকা, তাদের কেরিয়ার শুরু হয়েছিল করিনার ছেড়ে দেওয়া ছবিতে অভিনয় করেই। প্রিয়াঙ্কা চোপড়া থেকে শুরু করে আমিশা পাটেল, এমনকি রানী মুখার্জি, ঐশ্বর্য রায়ও বাদ যাননি এই তালিকা থেকে। জানুন বলিউডের প্রথম সারির কোন নায়িকারা করিনার প্রত্যাখ্যান করা ছবি দিয়েই নিজেদের কেরিয়ার গুছিয়ে নিয়েছেন।

প্রীতি জিন্টা (Preity Zinta) : করিনা কাপুরের সব থেকে কাছের বন্ধু পরিচালক করণ জোহর। জানলে হয়তো অবাক হবেন, সেইফ আলী খান, শাহরুখ খান এবং প্রীতি জিন্টা অভিনীত “কাল হো না হো” ছবিটিতে প্রীতির বদলে করণের প্রথম পছন্দ ছিলেন করিনা।

Kal Ho Na Hoতবে করিনা করণের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন। যে কারণে দুই বন্ধুর মধ্যে দীর্ঘদিন মনোমালিন্য চলেছে। একে অপরের সঙ্গে কথা বলতেন না তারা। অবশেষে করণের বাবার মৃত্যু দুই বন্ধুকে কাছাকাছি এনে দেয়। করণের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন করিনা।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া (Priyanka Chopra) : পরিচালক মধুর ভান্ডারকরের বিখ্যাত সিনেমা “ফ্যাশন”- এ প্রিয়াঙ্কা নন, করিনাই ছিলেন পরিচালকের প্রথম পছন্দের অভিনেত্রী। তবে কঙ্গনার সঙ্গে সহঅভিনেত্রী হিসেবে কাজ করতে চাননি করিনা। যে কারণে সুযোগ চলে যায় প্রিয়াঙ্কার হাতে।

উল্লেখ্য, এই ছবি থেকেই জাতীয় পুরস্কার লাভ করেছিলেন প্রিয়াঙ্কা। করিনা যদি সেদিন এই সিনেমার অফার না ফেরাতেন, তাহলে হয়তো তার কেরিয়ার আরও সুদৃঢ় হতো।

রানী মুখার্জি (Rani Mukherjee) : সঞ্জয় লীলা বনশালী পরিচালিত “ব্ল্যাক” ছবিতে “মিশেল ম্যাকনেলি”র চরিত্রটির অফার প্রথমে করিনার কাছেই গিয়েছিল। তবে চরিত্রটি ঠিক পছন্দ হয়নি করিনার।

আর ঠিক সেই কারণেই সঞ্জয় লীলা বনশলীর মতো পরিচালকের অফার ফিরিয়ে দিয়েছিলেন করিনা। তারপর এই সেই ছবিতে অভিনয় করার সুযোগ পান রানী মুখার্জি। বলা বাহুল্য, চরিত্রটির জন্য সেই বছরের ফিল্মফেয়ারের সব পুরস্কারই প্রায় রানীর ঝুলিতে উঠেছিল।

আমিশা পাটেল (Ameesha Patel) : বলিউডের এই সুন্দরী অভিনেত্রীর বলিউডে প্রবেশের পথ এতটা সহজ হতো না, যদি না করিনা কাপুর রাকেশ রোশনের ছবির অফার ফিরিয়ে দিতেন।

হৃত্বিক রোশনের বিপরীতে “কহো না পেয়ার হে” ছবিতে নায়িকা হিসেবে রাকেশ রোশন করিনাকেই চেয়েছিলেন। তবে করিনা তখন অভিষেক বচ্চনের বিপরীতে “রিফিউজি” ছবির হাত ধরে বলিউডে ডেবিউ করার প্রচেষ্টায় ছিলেন।

আরও পড়ুন : বাড়িতে সুন্দরী স্ত্রী, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে বউকে ঠকিয়েছে এই সেলিব্রিটিরা

ঐশ্বর্য রাই (Aishwarya Rai) : চমকে উঠলেন তো? রাই সুন্দরীর সফল কেরিয়ারের পেছনেও রয়েছে করিনার অবদান। একবার নয়, সঞ্জয় লীলা বনশলীর অফার জীবনে দুইবার ফিরিয়েছেন করিনা।

আরও পড়ুন : প্রসেনজিতের ছেড়ে দেওয়া সিনেমা করেই আজ সুপারস্টার সলমান খান

সলমান খানের বিপরীতে “হাম দিল দে চুকে সনম” ছবিতে সলমান-করিনার জুটিই তুলে ধরতে চেয়েছিলেন পরিচালক। তবে খুঁতখুঁতে স্বভাবের জন্য এই ছবিটিও ফিরিয়ে দেন বেবো।