বদলে গেল ‘Fair & Lovely’-র নাম, দেখে নিন নতুন নাম

534

আমেরিকা পুলিশের কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর পর থেকেই বর্ণবাদের বিরুদ্ধে বিশ্বের প্রতিটি দেশেই মানুষ প্রতিবাদে সামিল হয়। রাস্তায় নেমে সোচ্চার হওয়ার পাশাপাশি বেশ কিছু সংস্থার তৈরি করা জিনিসের নাম নিয়েও প্রতিবাদ শুরু হয়। কারন ঐ সকল জিনিসের নামের সাথে জড়িয়ে রয়েছে বর্ণ বিবাদ জড়িয়ে রয়েছে বলে দাবি করতে থাকেন আন্দোলনকারীরা।

‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনের পাশাপাশি ফেয়ারনেস ক্রিম প্রস্তুতকারক এই সকল সংস্থাগুলির বিরুদ্ধেও সোচ্চার হয় এই আন্দোলনকারীরা। আর যার পরেই বিতর্ক এড়াতে এবার বদলে ফেলা হলো Fair & Lovely ফেয়ারনেস ক্রিমের নাম। নামবদলের পরে আর রইলো না পুরাতন Fair & Lovely।

ফেয়ারনেস ক্রিম প্রস্তুতকারক এই সকল সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে মানুষ অভিযোগ তুলতে থাকেন ফেয়ারনেস ক্রিমের বিজ্ঞাপন এবং নাম অনেক সময় বর্ণবাদকে উস্কে দিচ্ছে। আর এমন বিতর্ক ছড়িয়ে পড়তেই ফেয়ার এন্ড লাভলী ফেয়ারনেস ক্রিমের প্রস্তুতকারক সংস্থা হিন্দুস্তান ইউনিলিভার প্রথম থেকেই জানাই তারা এই ফেয়ারনেস ক্রিমের নাম বদলে দেওয়ার জন্য পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে।

এরপরই এই ফেয়ারনেস ক্রিমের প্রস্তুতকারক সংস্থা হিন্দুস্তান ইউনিলিভার একটি বিবৃতিতে জানায় Fair & Lovely এর নাম বদলে করা হচ্ছে Glow & Lovely। আর এই নামবদলের জন্য তারা গত এক সপ্তাহ ধরে অনুমোদনের অপেক্ষায় ছিল বলে জানিয়েছে। বর্ণবাদ নিয়ে যখন বিশ্বজুড়ে বিতর্ক বেড়ে চলেছে তখন হিন্দুস্তান ইউনিলিভারের এই সিদ্ধান্ত ইতিবাচক বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সারা বিশ্বেই রঙ ফর্সাকারি ক্রিমের ব্যবহার রয়েছে, তবে দক্ষিন এশিয়ায় এর দেশগুলিতে এগুলির ব্যবহার সবচেয়ে বেশি। চিন, ভারতসহ এশিয়ার দেশগুলির প্রায় ৪০ শতাংশ নারী এই ধরনের তথাকথিত ‘ফেয়ারনেস ক্রিম’ ব্যবহার করেন।

সম্প্রতি জনপ্রিয় ম্যাট্রিমনিয়াল সাইট Shaadi.com থেকেও সরিয়ে নেওয়া হয় স্কিন টোন ফিল্টারের অপশন। একজন বিবাহযোগ্য পুরুষ বা নারী কতটা কালো বা ফর্সা তা বাছা যেত এই অপশনের মাধ্যমে। সম্প্রতি এই নিয়ে চরম বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে সাইটটি। ইউজারদের মধ্যে অসন্তোষ তৈরি হলে Shaadi.com-এর তরফে জানানো হয়, এটি শুধুমাত্র product debris এবং এর কোনও কার্যকারিতা নেই। তাঁরা শুধুমাত্র এই অপশনটি ডিঅ্যাক্টিভেট করতে ভুলে গেছেন।