এই স্কুলেই পড়ে বলিউড সেলিব্রিটিদের ছেলেমেয়েরা, ফিজ শুনলে ঘুরে যাবে মাথা

Avatar

Updated on:

সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সকলেরই জানতে ইচ্ছে করে বলিউড তারকাদের সাধারণ জীবনের কথা। কীভাবে শাহরুখ, হৃত্বিক, ঐশ্বর্যদের মতো বিখ্যাত বিখ্যাত বলিউড তারকারা তাদের ছেলে মেয়েদের বড়ো করে তোলে? কোন বিদ্যালয়ে তাদের ছেলেমেয়েরা পড়াশোনা করে? এরকম হাজারো প্রশ্ন  আমাদের মাথায় আসে। আর তাই আজকের প্রতিবেদনে আমরা আপনাকে জানাবো বলিউড স্টারদের  ছেলেমেয়েদের পড়াশোনা সম্পর্কে।

প্রথমেই বলতে  হয় বেশিরভাগ বলিউড স্টারদের ছেলে মেয়েদের পড়াশোনার সাথে আমরা একটা যোগসূত্র খুঁজে পেয়েছি। আর এই যোগসূত্রটি হল ধীরুভাই আম্বানি ইন্টারন্যাশনাল স্কুল। হাঁ এই আন্তর্জাতিক মানের বিদ্যালয়েই পড়াশোনা করে বিখ্যাত বিখ্যাত বলিউড স্টারদের ছেলে মেয়েরা। আর এই বলিউড স্টারদের ছেলে মেয়েদের মধ্যে আছে কিং খান শাহরুখ ও গৌরী খানের ছেলে আব্রাম,হৃত্বিক রোশন ও সুজানের দুই ছেলে হৃহান ও হৃদহান,অভিষেক ও ঐশ্বর্য বচ্চনের মেয়ে আরাধ্যা, শেইফ আলী খানের ছেলে ইব্রাহিম, সোনু নিগমের  ছেলেরা, চাঙ্কি পান্ডের মেয়ে রাইসা পান্ডে, বিধুবিনোদ চোপড়ার মেয়ে জুনি চোপড়া, কারিশমা কাপুরের ছেলে কিয়ান, লারা ও মহেশ ভূপতির মেয়ে সাইরা ভূপতি আরও অনেকেই এই বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছে বর্তমানে। শাহরুখের মেয়ে সুহানা খান ,আমিরের মেয়ে ইরা খান ও এমনকি সদ্য প্রয়াত শ্রীদেবীর বড়ো মেয়ে জাহ্নবীও এই বিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা করেছে।

এই বিদ্যালয়ের বিশেষত্ব

২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠিত  এই  আন্তর্জাতিক মানের বিদ্যালয়টিতে কিন্ডার গার্ডেন থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত পড়ানো হয়। বিদ্যালয়টিতে বিশ্বমানের শিক্ষা দেওয়ার উদ্দেশ্যে মুম্বাইয়ে বান্দ্রা কুরলা কমপ্লেক্সে  স্থাপন করেছিলেন আম্বানি গোষ্ঠী। বিদ্যালয়টি CISCE( Council for the Indian School Certificate Examinations)অনুমোদনপ্রাপ্ত। এছাড়াও এই বিদ্যালয়টির CIS অর্থাৎ (Cambridge International Examinations)অনুমোদনও আছে। এছাড়াও বিদ্যালয়টি CIS, NEASC স্বীকৃত।

বর্তমানে বিদ্যালয়ে ১০৭০ এর মত ছাত্রছাত্রী পড়াশোনা করে। বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা খুবই উচ্চশিক্ষিত এবং অভিজ্ঞতা সম্পন্ন। এই বিদ্যালয়ের শিক্ষক সংখ্যা প্রায় ১৪৪ এর বেশি। এইসব শিক্ষকদের মধ্যে দেশীয় এবং বিদেশী শিক্ষকও বর্তমান। এই বিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক অনুপাত ৭:১। অর্থাৎ প্রতি সাত জন ছাত্র প্রতি এক জন শিক্ষক। তাই প্রতিটি ছাত্র আলাদা করে শিক্ষকদের নজরে থাকে।

এই বিদ্যালয়টি বর্তমানে ভারতের অন্যতম প্রাইভেট বিদ্যালয়গুলির মধ্যে সবচেয়ে প্রথমের সারিতে এবং সারা বিশ্বের পাঁচটি উন্নত বিদ্যালয়ের মধ্যে অবস্থান করছে। বিদ্যালয়টিতে  প্রায় ৬০ টির মতো শ্রেণীকক্ষ আছে।

প্রতিটি শ্রেণীকক্ষ অডিও ভিজ্যুয়াল স্ক্রিন, ছাত্রছাত্রীদের জন্য লকার ও শীততাপ নিয়ন্ত্রনের ব্যবস্থা আছে। এছাড়াও ফুটবল খেলার জন্য কৃত্রিম ঘাসের মাঠ, বেসবল, টেবিল টেনিস, টেনিস,ব্যাডমিন্টন ,জুডো খেলার জন্য আলাদা আলাদা মাঠ আছে।

এছাড়াও ভারতীয় ও পশ্চিমী নৃত্য, যোগা, অঙ্কন, ও মিউজিক শেখার আলাদা আলাদা মঞ্চ বা কক্ষ আছে। এছাড়াও কম্পিউটার ,পদার্থবিদ্যা, জীববিদ্যা, উদ্ভিদবিদ্যা, রসায়ণের জন্য আলাদা আলাদা ল্যাবরেটরি  এবং গণিতের শিক্ষার জন্যও এখানে প্রজেক্ট কক্ষ আছে।

এই বিদ্যালয়ে মুক্ত শিক্ষা ধারা অবলম্বন করা হয়। এছাড়াও আছে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের জন্য আছে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত অডিটোরিয়াম। এছাড়াও আছে মেডিক্যাল সেন্টার যেখানে প্রশিক্ষিত নার্স এবং বিশেষজ্ঞ ডাক্তার।

এই বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস ওয়াই ফাই পরিষেবা যুক্ত। এছাড়াও আছে খাবারের জন্য আধুনিক প্রযুক্তিযুক্ত ক্যাফেটেরিয়া যেখানে আছে উন্নত ও স্বাস্থ্য সম্মত খাবার তৈরির জন্য রান্নাঘর এবং খাবার খাওয়ার জন্য আছে দুটি ডাইনিং হল।

এছাড়াও বিদ্যুৎ  ও শক্তি সংরক্ষণের জন্য এখানে সৌর বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হয়।এছাড়াও বর্ষাকালে জল সংরক্ষণের জন্য ভূনিম্নস্থ জল সঞ্চয়ের ব্যবস্থা করা আছে।ছাত্রছাত্রীদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়।

 

এই বিদ্যালয়ের পড়াশোনার খরচ

  • শিশু শ্রেণী থেকে চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত  বাৎসরিক ফি ২.০৫লক্ষ টাকা
  • পঞ্চম শ্রেণী থেকে সপ্তম শ্রেণী পর্যন্ত বাৎসরিক ২.১লক্ষ টাকা
  • ICSE মাধ্যমে অষ্টম শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত বাৎসরিক ২.৩লক্ষ টাকা
  • IGCSE মাধ্যমে অষ্টম শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত বাৎসরিক ৫.৯লক্ষ টাকা
  • IBDP মাধ্যমে একাদশ শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত বাৎসরিক খরচ ৯.৬৫লক্ষ টাকা।

শিক্ষকদের বেতন

এই আন্তর্জাতিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের বেতন শুরু হয় ৪০,০০০ টাকা থেকে এবং তা লক্ষ টাকার গন্ডি ছাড়িয়ে যেতে পারে অভিজ্ঞতা এবং শেখানোর দক্ষতার উপর ভিত্তি করে। এছাড়াও প্রতিটি বিষয় প্রধানদের বেতন দুই থেকে তিন লক্ষ টাকার মধ্যে থাকে। এছাড়াও বিদ্যালয়ের প্রিন্সিপ্যাল বাৎসরিক ৫০ লক্ষ টাকার বেশি বেতন ও অন্যান্য সুবিধা ভোগ করে।