সন্তানের কারণে বাড়ছিল দূরত্ব! বিয়ের ১১ বছরের মাথায় ডিভোর্স নিলেন বলিউডের জনপ্রিয় জুটি

বিয়ের ১১ বছরের মাথায় ডিভোর্স! পাকাপাকিভাবে আলাদা হলেন বলিউডের জনপ্রিয় এই তারকা জুটি

অবশেষে বেশ কয়েক মাসের জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে নিজেদের বিবাহ বিচ্ছেদের কথা ঘোষণা করলেন এষা দেওল (Esha Deol) এবং ভরত তখতানি (Bharat Takhtani)। দীর্ঘ ১১ বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতি টানলেন তারা। ডিভোর্সের কথা খোলাখুলি স্বীকার করে নিলেন ধর্মেন্দ্র এবং হেমা মালিনীর মেয়ে। কী বললেন তিনি? কেনই বা হল ডিভোর্স?

দুই সন্তানকে নিয়ে সুখে কাটছিল এষার সংসার

২০১২ সালে সাত পাকে বাঁধা পড়েছিলেন এষা দেওল এবং ভরত তখতানি। ২০১৭ সালে প্রথম সন্তান রাধ্যার বাবা-মা হন তারা। ২০১৯ সালে জন্ম হয় দ্বিতীয় সন্তান মীরায়ার। ২০২৩ সালে অর্থাৎ গত বছরের জুন মাসে হেমা মালিনীর বড় কন্যা স্বামীর সঙ্গে বেশ কিছু ছবি পোস্ট করেছিলেন বিবাহ বার্ষিকী উপলক্ষে। লিখেছিলেন, “অনন্তকালের জন্য… ১১ বছর কাটানোর অভিজ্ঞতা।”

Bharat Takhtani And Esha Deol

সমস্যা তৈরি হয় ২০২৩ থেকে

সমস্যাটা তৈরি হয় গত বছরের শেষ থেকে, কারণ হেমা মালিনীর জন্মদিন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত হওয়া পার্টিতে উপস্থিত ছিলেন না জামাই ভরত। স্বাভাবিকভাবেই উঠতে থাকে প্রশ্ন। এরপরে হঠাৎ লক্ষ্য করা যায়, এষা স্বামী এবং সন্তানদের সঙ্গে ছবি পোস্ট না করে শুধুমাত্র মেয়েদের সঙ্গে ছবি পোস্ট করছেন। এমনকি দীপাবলির দিনেও মা এবং দুই মেয়ের সঙ্গেই সময় কাটিয়েছেন এষা। তখন থেকেই বোঝা যায় সম্পর্কে হয়তো ভাঙন ধরেছে।

বিবাহবিচ্ছেদ নিয়ে মুখ খুললেন এষা

সম্প্রতি দিল্লি টাইমসকে দেওয়া একটি বিবৃতিতে এই দম্পতি জানিয়েছেন, “আমরা পারস্পরিক এবং সৌহার্দ্যপূর্ণ ভাবেই এই বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমাদের জীবনের এই পর্যায়ে এসেও আমাদের দুই সন্তান যাতে ভালো থাকে, সেটাই আমাদের কাছে সব থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আশা রাখবো এই গোপনীয়তাকে সম্মান জানানো হবে।”

Bharat Takhtani And Esha Deol

এষার লেখা বইতে উঠে এসেছে সম্পর্কের টানাপোড়েনের কথা

২০২০ সালে এষা একটি বই লেখেন, যার নাম ছিল Amma Mia: Stories, Advice and Recipes। এই বইতে নিজেদের অভিভাবকত্বের সফর খুব সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলেছিলেন অভিনেত্রী। লিখেছেন, কীভাবে ২০১৯ সালে দ্বিতীয় সন্তানের জন্মের পর তার স্বামী ভরত অবহেলিত বোধ করতে শুরু করেছিলেন। কীভাবে দুই সন্তানকে সামলানোর জন্য স্বামীর প্রতি নজর দিতে ভুলে গিয়েছিলেন অভিনেত্রী, সেটাও তিনি লেখেন এই বইতে।

বইতে লেখা আছে, “আমার দ্বিতীয় সন্তানের পর অল্প সময়ের মধ্যেই আমি লক্ষ্য করি ভরত আমার সঙ্গে খামখেয়ালী আচরণ করছে। ও অনুভব করেছিল, আমি যথেষ্ট মনোযোগ দিচ্ছি না ওকে। একজন স্বামীর পক্ষে এই অনুভব করাটা খুব স্বাভাবিক কারণ সেই সময় আমি দুই সন্তানকে নিয়েই ভীষণ ব্যস্ত ছিলাম। সঙ্গে ছিল আমার বই লেখা এবং প্রযোজনা সংস্থার একাধিক মিটিং”।

আরও পড়ুন : বিবাহিত জীবনে ব্যর্থ, স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে সাফল্য পেয়েছেন এই ৯ অভিনেত্রী

Bharat Takhtani And Esha Deol

বইতে আরও লেখা রয়েছে, “আমি ধীরে ধীরে আমার ত্রুটি বুঝতে পারি। আমার কাছে ভরত নতুন একটা ব্রাশ চেয়েছিল সেটা আমার মাথা থেকে বেরিয়ে যায়, কখনও আবার জামা আয়রন করতে ভুলে যেতাম আবার কখনও ও খাবার ছাড়াই অফিসে চলে যেত আমি খেয়ালই করতাম না। যদিও খুব শীঘ্রই আমি এগুলোকে শুধরে নিয়েছিলাম”।

আরও পড়ুন : ২০২৩ -এ ভেঙেছে সংসার! বিয়ে ভেঙে আলাদা হয়েছেন এই ৫ তারকা জুটি

প্রসঙ্গত, অভিনেত্রীর লেখা বই থেকে বোঝাই যায় যে তিনি চেষ্টা করেছিলেন সম্পর্ক ধরে রাখতে কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা সফল হয়নি। অবশেষে সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নেন দুজনেই। ভরত এখন রয়েছেন বেঙ্গালুরুতে। তবে তিনি একা নন, রয়েছেন তার ‘প্রেমিকা’ কে সঙ্গে নিয়ে।