হাওয়াতে উড়ছে প্লাস্টিকের খাঁড়া, সেটা দিয়েই মানুষ খুন! ব্যাপক ট্রোলড শ্রুতি দাস

ফের চর্চায় ‘দেশের মাটি’ (Desher Mati)। না, রাজা-মাম্পি (Raja-Mampi) জুটির রোমান্টিসিজম নিয়ে নয়। দর্শক এবার ফের মেতেছে নোয়ার সমালোচনায়। রাজা-মাম্পির বিবাহ পর্ব মিটতে না মিটতেই নতুন বিপদের মুখে নোয়া-কিয়ান (Noa-Kiyan)। কিয়ানকে খুনের চেষ্টা করেছে শিবু। গুরুতর আহত কিয়ান এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এদিকে স্বামীর এই অবস্থার জন্য দায়ী শিবুগুন্ডাকে উচিত শিক্ষা দিতে তাঁর বাড়িতে পৌঁছে গিয়েছে নোয়া। যাওয়ার আগে মা কালীর হাত থেকে খাঁড়া নিয়ে যেতে ভোলেনি।

ধারাবাহিকের এই পর্যায়টি আদতে বড়ই গুরুগম্ভীর। তবে এমন এক গম্ভীর মুহূর্তের মধ্যে থেকেও কিন্তু হাসির রসদ খুঁজে নিয়েছেন দর্শক। কারণ যে অস্ত্র নিয়ে শিবুর বাড়িতে গিয়ে হম্বিতম্বি করে এলো নোয়া, সেটি যে আদতে প্লাস্টিকের! একটু হাওয়া দিলেই প্লাস্টিকের খাঁড়া ফতফত করে নড়ে উঠছে যে। যা দেখে এক মুহূর্তের মধ্যেই দৃশ্যের গাম্ভীর্য যেন নষ্ট হয়ে যায়। দর্শকের দৃষ্টি এড়ায়নি এই দৃশ্যটি। অভিনেত্রী শ্রুতি দাসকে (Shruti Das) কেন্দ্র করেও বহু কটাক্ষ করা হচ্ছে।

এমন একটি খাঁড়া, যা কিনা সামান্য হাওয়াতেই নড়ে ওঠে, তাই দিয়েই শিবুকে একেবারে খুন করে ফেললো নোয়া? কিভাবে এমন অসাধ্য সাধন সম্ভব? প্রশ্ন তুলছেন নেটিজেনরা। একদল নেটাগকরিকের দাবি, প্লাস্টিকের খাঁড়ার বদলে আসল খাঁড়া ব্যবহার করলেই বেশি ভালো হতো! জনৈক নেটিজেন মজা করে লিখেছেন, এমন অস্ত্র দিয়ে তো একটা মশাও মরবে না! মানুষ তো কোন ছাড়।

এদিকে সেই অস্ত্র দিয়েই নাকি শিবুকে কুপিয়ে খুন করে পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে নোয়া! আবার শিবুর মা-বাবাকে সে চিৎকার করে বলে, ‘আপনার ছেলেকে না পুরো শেষ করে দিয়েছি!’ দৃশ্য দেখে হাসি চেপে রাখতে পারছেন না অনেকেই। এমন প্লাস্টিকের খাঁড়া ব্যবহার করেও যে কাউকে খুন করা যায়, সে কথা জানা ছিল না অনেকেরই। আবার নোয়ার মধ্যে ‘কে আপন কে পর’ এর জবার প্রতিচ্ছবি দেখছেন অনেকে! যার কাছে কোনও কাজই অসাধ্য ছিল না।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দেশের মাটি ধারাবাহিকটি প্রথম থেকেই বিতর্কের শীর্ষে অবস্থান করছে। বিশেষত ধারাবাহিকের নোয়া চরিত্রটিকে নিয়ে এবং সেই চরিত্রের অভিনেত্রী শ্রুতি দাস নিয়ে কার্যত দর্শকের কটাক্ষের যেন কোনও বিরাম নেই। কখনো তার ত্বকের রঙ নিয়ে, কখনো তার ব্যক্তিগত জীবন এবং চরিত্র নিয়ে নেটমাধ্যমে কুকথা বলেই চলেছেন একদল নেটিজেন। তবে শ্রুতি অবশ্য বরাবর এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন।

এবার আরও একবার কটাক্ষ ধেয়ে এলো শ্রুতি দিকে। যদিও এবার নেটিজেনদের নিশানায় কেবল শ্রুতি একা নন। শ্রুতির মতো ধারাবাহিকের নির্মাতা নিয়েও কটাক্ষের বন্যা বইছে নেটমাধ্যমে। এদিকে আবার রাজা-মাম্পির বিয়ে মিটতে না মিটতেই ধারাবাহিকের মোড় নোয়া-কিয়ানের দিকে ঘুরিয়ে দেওয়া নিয়েও গল্পকার লীনা গঙ্গোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন রাম্পির অনুরাগীরা। শীঘ্রই ধারাবাহিকের ফোকাস আবার রাম্পির উপরে নিয়ে আসার দাবি জানিয়েছেন তারা।