বাসি নয় ‘কলকাতার রসগোল্লা’ এখনো টাটকা, ডান্স বাংলা ডান্সে প্রমাণ দিলেন দেবশ্রী রায়

৯০ এর দশকে টলিউডের (Tollywood) প্রথম সারির অভিনেত্রীদের সঙ্গেই উচ্চারিত হতো তার নাম। তৎকালীন সময়ের দর্শকমহলে তিনি ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছেন। অভিনয় ছেড়ে মাঝে রাজনীতির আঙিনায় চলে গিয়েছিলেন তিনি। তবে আজও দর্শক তাকে মনে রেখেছেন তার রূপ, অভিনয় দক্ষতা এবং নাচের সুবাদে। সারা পশ্চিমবঙ্গের মানুষ তাকে ভালবেসে নাম দিয়েছেন ‘কলকাতার রসগোল্লা’। ঠিকই ধরেছেন, কথা হচ্ছে টলিউড অভিনেত্রী দেবশ্রী রায়কে (Debashree Roy) নিয়ে।

অভিনেত্রী দেবশ্রী রায়, তার অভিনয় জীবনের কেরিয়ারে দর্শককে অনেক সুপার হিট ছবি উপহার দিয়েছেন। ‘ভালোবাসা ভালোবাসা’, ‘দাদার কীর্তি’, ‘মেজদিদি’, ‘প্রতিকার’সহ একাধিক ছবিতে অভিনয় করে তিনি ক্রমশ দর্শকের পছন্দের অভিনেত্রী হয়ে উঠেছেন। তবে মাঝে অবশ্য ইন্ডাস্ট্রি থেকে হারিয়ে যান দেবশ্রী। চলে যান রাজনীতিতে। তবে নিজের ভুল বুঝতে পেরে আবার তিনি ফিরে এসেছেন টলিউডে। আর টলিউডও তার ঘরের মেয়েকে দুই হাত বাড়িয়ে অভ্যর্থনা জানিয়েছে।

শীঘ্রই জি বাংলার নতুন ধারাবাহিক ‘সর্বজয়া’তে লিড রোলে অভিনয় করতে দেখা যাবে দেবশ্রীকে। দেবশ্রীর এই প্রত্যাগমনে বেজায় খুশি তার অনুরাগীরা। তবে সমাজ মাধ্যমে তো সমর্থকের পাশাপাশি সমালোচকদের ছড়াছড়ি। বরং সমর্থনকারীর তুলনায় কু-মন্তব্যকারীর সংখ্যাই সেখানে বেশি। আসন্ন ধারাবাহিকের নতুন প্রোমো দেখে দর্শকদের একাংশ তাকে ‘কলকাতার বাসি রসগোল্লা’ বলে অশ্লীলভাবে ট্রোল করেন।

তবে তাতে দমে না গিয়ে দেবশ্রী বরং নতুন রূপে আবার ফিরেছেন পর্দায়। হালফিলে জি বাংলার জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো ‘ডান্স বাংলা ডান্স’ এ বিশেষ বিচারকের আসনে উপস্থিত হয়েছিলেন দেবশ্রী। আর সেখানেই ঋষিতা নামের এক খুদে প্রতিযোগী দেবশ্রীকে সম্মান জানাতে তারই বিভিন্ন গানের উপর নাচ পরিবেশন করে। যা দেখে মুগ্ধ হয়ে যান দেবশ্রী। এরপর তিনি নিজেই মঞ্চে এসে কলকাতার রসগোল্লা গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেন। যা দেখে আবারও মুগ্ধ দর্শক।

প্রসঙ্গত, হালফিলে ‘রক্তলেখা’ ছবিতে দেবশ্রীর ‘কলকাতার রসগোল্লা’ গানের প্রসঙ্গ টেনে জনৈক নেটিজেন তাকে কটাক্ষ করে লেখেন, “রূপ নিয়ে অহংকার কোরো না মাসি, ৯০ এর সেরা রসগোল্লাও আজ বাসি”! অনেকেই আবার সেই কু-মন্তব্যকারীকেই সমর্থন করেছিলেন। একবাক্যে বলেছিলেন, দেবশ্রীকের এখন আর বৌমার চরিত্রে মানাবে না। তাকে বরং শাশুড়িমার চরিত্রই দেওয়া হোক। অভিনেত্রীর চেহারা নিয়ে চূড়ান্ত সমালোচনা শুরু হয়েছিল নেট মাধ্যমে। ট্রোল-মিমের বন্যা বয়ে গিয়েছিল নেট মাধ্যমে।

দেবশ্রীর প্রতি এমন অশ্লীল বাক্য প্রয়োগের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছিলেন জয়জিৎ, ভাস্কর, শ্রীলেখা মিত্ররা। তবে বাকিরা অবশ্য চুপচাপ থেকেই মজা দেখে গিয়েছেন। যা নিয়ে পরবর্তীকালে সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দেন দেবশ্রী। তবে এদিন রিয়েলিটি শোয়ের ওই দেবশ্রী স্পেশাল পর্বে সেই কলকাতার রসগোল্লা গানের সঙ্গে নেচেই আরও একবার নিজের জাত চেনালেন অভিনেত্রী। বুঝিয়ে দিলেন, সমালোচকদের ট্রোলের সম্মুখীন হয়ে পিছিয়ে পড়ার মতো মানসিকতা নয় তার।

তাইতো নিজের পারফরম্যান্সের নিরিখেই আবার প্রশংসা কুড়োলেন দেবশ্রী। নাচের পারফরম্যান্সে রিয়েলিটি শোয়ের স্টেজ মাতালেন দেবশ্রী। শোয়ের অন্যান্য বিচারকেরাও দেবশ্রীর সঙ্গে একই মঞ্চ ভাগ করে নিলেন। নাচে-গানে জমজমাট হয়ে উঠলো ডান্স বাংলা ডান্স এর প্ল্যাটফর্ম। নেপথ্যে, কলকাতার রসগোল্লা দেবশ্রী রায়। কলকাতার রসগোল্লা যে বাসি হয়ে যায়নি, তার প্রমাণ রাখলেন দেবশ্রী। আজও তিনি অভিনয় এবং নাচের নিরিখে সর্বসেরা, তার প্রমাণ দিতেই খুব শীঘ্রই ‘সর্বজয়া’ হয়ে পর্দায় ফিরছেন দেবশ্রী।