দেরিতে ট্রেন আসার সময়কে কাজে লাগিয়ে লাখপতি  মহিলা! জানুন কীভাবে

154

নিত্যদিন ট্রেন লেট হলে যাত্রীরা সাধারণত বিক্ষোভ-অবরোধের পথে হাঁটেন। কিন্তু নিত্যদিন ট্রেন দেরিতে আসার সময়কে কাজে লাগিয়ে লাখপতি হলেন ক্লদিয়া ওয়েবার নামে এক জার্মান মহিলা।

জার্মানির মিউনিখ শহরের বাসিন্দা ক্লদিয়া ওয়েবার ট্রেন বিলম্বের হিসাব রাখতে অভিনব এক উপায় বের করেছিলেন। বিলম্বের পরিমাণ বোঝাতে বিভিন্ন রং দিয়ে স্কার্ফ বোনা শুরু করেন তিনি৷ বিভিন্ন রঙের উল দিয়ে দেড় মিটার, অর্থাৎ প্রায় ৫ ফুট লম্বা একটি স্কার্ফ বুনে ফেলেন তিনি৷ তারপর সেই স্কার্ফটিই বিক্রির জন্য একটি ই-কমার্স সাইটে নিলামে তোলেন। স্কার্ফটির উলের রঙ বিলম্বের সেই সময়গুলোই নির্দেশ করে বলে জানিয়েছেন ক্লদিয়া ওয়েবারের মেয়ে সারাহ ওয়েবার৷

সারাহ জানান, তার মা যাতায়াতের জন্য সব সময় ট্রেনের মতো গণপরিবহণেই ব্যাবহার করেন৷ কিন্তু ট্রেন আসতে প্রায়ই বিলম্ব হওয়ায় তিনি ভীষণ বিরক্ত হয়ে এক সময় নিজেই হিসাব রাখার একটি অভিনব পদ্ধতি বের করেন। ট্রেন আসতে পাঁচ মিনিট বা তার কম দেরি হলে ধূসর রঙের উলে স্কার্ফ বুনতেন তিনি৷ ৫ থেকে ৩০ মিনিট দেরি হলে স্কার্ফ বুনতেন গোলাপি উলে। আর ট্রেন আসতে বা যেতে উভয় ক্ষেত্রেই দেরি করলে বা ৩০ মিনিটের বেশি বিলম্ব হলে, লাল রঙের উলে স্কার্ফ বুনতেন তিনি৷

স্কার্ফটি বোনা শেষ হয়ে গেলে মায়ের ইচ্ছা অনুযায়ী সারাহ সেটিকে বিক্রির জন্য একটি পোস্ট দেন টুইটারে৷

ক্লদিয়ার ওয়েবারের মেয়ে সারা ওয়েবার তাঁর মায়ের এই অভিনব পন্থার ব্যাপারে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তাঁর মা আর পাঁচজনের মতোই ট্রেনে-বাসেই যাতায়াত করেন। কিন্তু নিত্যদিন ট্রেন আসতে দেরি হওয়ার জন্য একপ্রকার বিরক্ত হয়েই কোন ট্রেন কতক্ষণ দেরি হচ্ছে তার হিসাব রাখার এক অভিনব পন্থা বের করেন তিনি।

ট্রেন আসতে পাঁচ মিনিট বা তার কম সময় দেরি হলে ধূসর রঙের উলে মাফলারটি বুনতেন তিনি, ৫ মিনিট থেকে আধ ঘণ্টা দেরি হলে মাফলার বুনতেন গোলাপী উলে। আর ট্রেন আসা এবং যাওয়া উভয় ক্ষেত্রে দেরি হলে বা ৩০মিনিটের বেশি দেরি হলে ব্যবহার করতেন লাল রঙের উল।

আরও পড়ুন ঃ মাটি খুঁড়ে কোটিপতি এক দিনমজুর! কিন্তু কীভাবে? জানুন বিস্তারিত

স্কার্ফটি বোনা শেষ হওয়ার পর মায়ের ইচ্ছা অনুযায়ী সারাহ সেটিকে বিক্রির জন্য একটি পোস্ট করেন নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে৷ কিন্তু তাতে যে এতটা সাড়া পাবেন তা ভাবেননি তিনি৷ নিলামে সেই স্কার্ফ পেতে রীতিমতো দরাদরি চলে আগ্রহীদের মধ্যে। বেশ চড়া দামেই বিক্রি হয়েছে সেটি। নিলামে এক ক্রেতা সেই স্কার্ফ কিনেছেন ৭ হাজার ৫৫০ ইউরোতে। ভারতীয় মুদ্রায় যার মূল্য ৬ লক্ষ টাকারও বেশি! সারাহ জানিয়েছেন, তাঁর মায়ের ইচ্ছা নিলামে পাওয়া অর্থ জার্মান রেলওয়ে পরিচালিত দাতব্য সংস্থায় দান করবেন৷

ট্রেনের এই দেরি হওয়ার প্রতিকার করতে সম্প্রতি বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে জার্মান রেল। ট্রেন লেটের ঘটনা কমাতে  নিয়োগ করা হয়েছে বিশেষজ্ঞদের। জানানো হয়েছে, এখন থেকে অযৌক্তিক কারণে ট্রেনের বিলম্ব হলে চাকরিও যেতে পারে চালকের৷

Loading...