করোনা কমতেই আবার বাদুড়-কুকুর খাওয়া শুরু করল চিন

ডিসেম্বর মাসে চিনে প্রথম করোনা আক্রান্তের খবর পাওয়া যায়। তারপর কেটে গিয়েছে অনেকগুলি মাস। করোনা ভাইরাস চিনের সীমানা পেরিয়ে ছড়িয়ে পড়েছে ১১৭ টি দেশে। গোটা বিশ্ব পরিণত হয়েছে মৃত্যুপুরীতে। চিনের সিফুড মার্কেট অথবা বাদুড় থেকে এই ভাইরাসের উৎপত্তি। অবশ্য চিনকেও এর জন্য কম মাশুল গুনতে হয়নি। কিন্তু একটু বিপদমুক্ত হতেই যেই কি সেই। যেই কারনে চিনে করোনার উৎপত্তি বলে জানা যায় আবারও সেইদিকেই ঝুঁকছে চীনারা।

চিনে প্রথম ৫৫ বছরের এক বৃদ্ধের শরীরে করোনা পাওয়া যায়। বিশেষজ্ঞরা দাবি করেন, চিনাদের খাদ্য স্বভাবের জন্যই করোনা বৃদ্ধি করে। একের পর এক করোনা আক্রান্ত হলেও চিন এখন বিপদমুক্ত। এখনও পর্যন্ত করোনার কোনো প্রতিষেধক আবিস্কার না হলেও চিন সরকারের দাবি শুধুমাত্র প্রতিরোধ ব্যবস্থার উপর নির্ভর করেই চিন করোনামুক্ত হতে পেরেছে। কিন্তু কথায় আছে ‘স্বভাব যায় না মলে” চিনের অবস্থাও হয়েছে তাই করোনামুক্ত হতেই আবার সেই বাদুড়,কুকুর,প্যাঙ্গোলিন খাওয়া শুরু করে দিল চিনারা।

আরও পড়ুন :- বাদুড় মেরে স্যুপ বানিয়ে খেয়ে এই মহিলাই ছড়িয়েছেন কোরোনা ভাইরাস

চিনের উহানের হুয়ানান সিফুড মার্কেট ছিল এই করোনা সংক্রমণের মূল কেন্দ্র। এখান থেকে সিফুডের মাধ্যমে ইউরোপের দেশগুলিতে এই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে বলে বিজ্ঞানীদের ধারণা, যা থেকে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৩৮ হাজার মানুষের। ১২ জানুয়ারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তরফেও জানানো হয়েছে, “তথ্যপ্রমাণ দেখে বোঝা যাচ্ছে উহানের সিফুড মার্কেট থেকেই এই ভাইরাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে।” এবার চিন একটু বিপদমুক্ত হতেই বাজারে বাদুড়ের মাংস বিক্রি করা শুরু করে দিল। শুধুমাত্র বাদুড় নয় রয়েছে কুকুর ও প্যাঙ্গোলিনের মাংসও।

আরও পড়ুন :– বিশ্বে প্রথম করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে এই ব্যক্তিই

সম্প্রতি ওয়াশিংটনের একটি সংবাদমাধ্যম দাবি করেন চিনে খোলা বাজারে দেদারে বিকোচ্ছে বাদুড়, কুকুর ও প্যাঙ্গোলিনের মাংস। তবে সংবাদমাধ্যমের দাবি বিক্রেতারা গোপনীয়তা বজায় রাখার চেষ্টা করছেন।

ওয়াশিংটনের ওই সংবাদমাধ্যম বিবৃতিতে লেখেন,’ চিনের বাজারে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর আগে যেভাবে বাদুড়,কুকুর ও প্যঙ্গোলিনের মাংস বিক্রি হত ঠিক সেভাবেই আবার প্রকাশ্য বাজারে বাদুড়, কুকুর ও প্যাঙ্গোলিনের মাংস বিকোচ্ছে। তবে সজাগ রয়েছে রক্ষীরা। প্রানী হত্যার ভিডিও যাতে কেও করতে না পারে সেইদিকে কড়া নজর রাখছেন তাঁরা।‘

আরও পড়ুন :- আপনার জেলার কোন হাসপাতালে হচ্ছে করোনার চিকিত্‍সা দেখে নিন

এই খবর প্রকাশ পেতেই মাথায় হাত পড়েছে চিকিৎসক,বিজ্ঞানীদের। করোনার উৎপত্তি যে বাদুড়ের হাত ধরে সেই বাদুড় যে আবারও বিপদ টেনে আনবে না তা বলা যায় না। চিনের মতো দেশ করোনার মোকাবিলায় হিমশিম খেয়েছে। সারা বিশ্ব এখনও করোনায় শ্মশানে পরিণত হয়েছে। ইতিমধ্যেই বিশেষজ্ঞরা চিনে মাংসের বাজার অবিলম্বে বন্ধ করার দাবি জানিয়েছেন। বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, যে বাদুড়ের জন্য এত কান্ড বাদুড়ই যে আবার মরার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দাঁড়াবে না তা কে বলতে পারে।