সাইকেলে চেপে বিয়ে করতে গেল বর, অনলাইনে হল বিয়ে, ভাইরাল নবদম্পতি

অনলাইনে বিয়ে, খাওয়া দাওয়া হোম ডেলিভারিতে, সাইকেল র‍্যালিতে এলো বরযাত্রী

Burdwan Groom Reaches Venue By Cycle Video Viral

করোনার (Corona) দরুণ আনন্দ অনুষ্ঠানে কাটছাঁট হয়েছে। যদিও মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে বিয়েবাড়ির (Wedding Hall) অনুষ্ঠানে হালফিলে সর্বোচ্চ ২০০ জন উপস্থিত থাকতে পারছেন। যদিও সরকারি নির্দেশ উপেক্ষা করার প্রবণতা সাধারণ মানুষের মধ্যে বহুবার লক্ষ্য করা গিয়েছে। তবে স্বাস্থ্যই সকলের আগে, একথা অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলেন বর্ধমানের (Burdwan) এক নবদম্পতি (New Couple)। তাদের বিয়েতে আমন্ত্রিতদের মধ্যে সশরীরে উপস্থিত থাকতে পারলেন ১০০ জন। বাকিরা বিয়ে দেখলেন গুগোল মিটে (Google Meet) ঘরে বসে।

প্রযুক্তির এই দুনিয়ায় প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে বিয়ে সারলেন বর্ধমানের সন্দীপন এবং অদিতি। আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে বেশিরভাগ জন বাড়িতে বসেই গুগোল মিটে দূর থেকে দেখলেন বিয়ে। বিয়ের অনুষ্ঠানের রাতের আমন্ত্রিতদের জন্য খাবার বাড়িতে পৌঁছে গেল জোমাটো থেকে। চমকের এখানেই কিছু শেষ নেই। পরিবেশের কথা ভেবে বিয়েবাড়ি পৌঁছতে গাড়ির বদলে বরযাত্রী সাইকেল র‍্যালি নিয়ে হাজির বিয়ের আসরে। এই সিদ্ধান্তের কারণে সামাজিক মাধ্যমে রীতিমতো সেলিব্রিটি সুলভ প্রতিক্রিয়া পাচ্ছেন তারা।

বিয়ের দিন ফেসবুকে গুগোল মিটের লিংক শেয়ার করেছিলেন পাত্র-পাত্রী। সেখানে আত্মীয়-পরিজনের তো বটেই, নেটিজেনদের মধ্যে অনেকেই তাদের বিয়ে দেখলেন। আত্মীয়দের বাড়িতে অনলাইন ডেলিভারিতে পৌঁছে গেল খাবার। তবে সব থেকে বড় চমক ছিল বিয়ের দিন বরযাত্রীদের নিয়ে। বেশ কয়েক কিলোমিটার সাইকেল চালিয়ে হবু বর বরযাত্রীদের নিয়ে পৌঁছেছিলেন বিয়ে বাড়িতে। দুটি কারণে তিনি এমন অভিনব পন্থা নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন সন্দীপন। জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে বার্তা দেওয়ার পাশাপাশি পরিবেশ এবং জ্বালানি বাঁচাতে সাইকেলের ভূমিকার কথা তুলে ধরেছেন তিনি।

সংবাদমাধ্যমের কাছে সন্দীপন বলেছেন, “আমরা যেন কাছে-পিঠে কোথাও গেলে তেল না পুড়িয়ে সাইকেলেই যাই, তাই এই ভাবনা। আমার সঙ্গে আছেন আরও ১১ বরযাত্রী। ওঁরাও সাইকেলেই কয়েক কিলোমিটার যাচ্ছেন আমার সঙ্গে”। কেন এমন ভাবনা মাথায় এলো তাদের? পাত্র জানাচ্ছেন, করোনা এর পেছনে কারণ। অতিমারির মধ্যে বিয়ে। অতিমারির মধ্যে কাকে ছেড়ে কাকে বাছবেন তা নিশ্চিত করতে গিয়ে কালঘাম ছুটে গিয়েছিল দুই পরিবারের। এদিকে মাসের শুরুতে পাত্র নিজেই করোনা আক্রান্ত হয়ে পড়েন। তার পরে আর ঝুঁকি নিলেন না তারা। অনলাইন বিয়ের দ্বারস্থ হলেন।

বিয়ের অনুষ্ঠানে দুই পরিবারের ১০০ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। বাকিদের জন্য খোলা রইল গুগোল মিটের লিংক। এমন আয়োজনে পাত্রীপক্ষও বেজায় খুশি। যারা উপস্থিত হতে পারেননি তাদের মধ্যে সকলেই ঘরে বসেই নৈশভোজ পেয়ে গিয়েছেন। অল্পবিস্তর সমস্যা ছাড়া বড়োসড়ো কোনও গোলযোগ হয়নি এই অনলাইন বিয়েতে। নেটিজেনদের একাংশ এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন।