মাসে ২ বার শপিং, রবিবারের প্রাতরাশ বানাবেন স্বামী, কনের চুক্তিপত্র দেখে চক্ষু চড়কগাছ হবু বরের

বিয়ের আগে একগুচ্ছ‌ শর্ত লিখে স্বামীর হাতে ধরিয়ে দিলেন স্ত্রী, দেখে বিষম খাচ্ছেন হবু বরেরা

হিন্দু ধর্ম মতে মালাবদল, শুভদৃষ্টি, থেকে সাতপাক, সিঁদুর দানের অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দুজন মানুষ সারা জীবনটা একে অপরের সঙ্গে কাটানোর প্রতিশ্রুতি দেন। সাত পাক ঘোরার সঙ্গে সঙ্গে প্রত্যেক পাকে কখনও স্বামী তার স্ত্রীকে কখনও বা স্ত্রী স্বামীকে সুখে-দুঃখে ভালো থাকার, ভালো রাখার প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু এ কেমন বিয়ে (Marriage) যেখানে রেজিস্ট্রি পেপারে সই করার আগে বিশাল বড় এক চুক্তিপত্র (Contract) একে অপরের হাতে ধরিয়ে দিলেন স্বামী-স্ত্রী?

জানেন কী লেখা আছে এই চুক্তিপত্রে? বিয়ের পর স্বামীকে স্ত্রীর প্রতি এবং স্ত্রীকে স্বামীর প্রতি কী কী দায় দায়িত্ব পালন করতে হবে সেই সমস্ত ছাপার অক্ষরে লেখা আছে এই লম্বা-চওড়া চুক্তিপত্রে। শর্তগুলো দেখলে রীতিমতো অবাক হতে হয়।

সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল একটি বিয়ের ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে মালাবদলের পর চুক্তিপত্রে সই করছেন স্বামী-স্ত্রী। সেখানে দুজনেই একে অপরের জন্য একাধিক শর্ত বেঁধে দিয়েছেন। যেমন সেখানে লেখা রয়েছে, মাসে কেবল একটাই পিৎজ্জা খেতে পারবেন। ঘরের খাবার খেতে কখনও অস্বীকার করা চলবে না।

আবার স্বামী চাইছেন স্ত্রীকে বাড়িতে সবসময় শাড়ি পড়েই থাকতে হবে। গভীর রাত পর্যন্ত পার্টি চলবে তবে কেবল একে অপরের সাথেই। আর অবশ্যই রোজ জিমে যাবেন দুজনে। তবে চুক্তিপত্রের বাকি শর্তগুলোতে কিন্তু স্বামীকে বেশ চাপেই ফেলে দিয়েছেন ওই কনে।

স্ত্রী লিখেছেন, প্রতি রবিবার স্বামী প্রাতরাশ তৈরি করে দেবেন স্ত্রীকে। প্রত্যেকটি পার্টিতে গিয়ে তাকে সুন্দর সুন্দর ছবি তুলে দিতে হবে। প্রতি ১৫ দিন অন্তর অন্তর শপিংও জরুরী। বিয়ের শর্তাবলী দেখে থ বনে গিয়েছেন নেটিজেনরা। হু হু করে ভাইরাল হয়েছে এই ভিডিওটি।

ভিডিওর নিচে কমেন্ট বক্সে নানা মতামত রাখছেন নারী-পুরুষ নির্বিশেষে। যেমন মহিলারা লিখছেন বাড়িতে সবসময় শাড়ি পরে থাকা সম্ভব নয়। পুরুষরাও লিখছেন, মাসে দুবার শপিং করানো কোনও পুরুষের পক্ষেই সম্ভব নয়। তবে সে যাই হোক এই চুক্তির বিয়ে দেখে কিন্তু বেশ মজা পেয়েছেন নেটিজেনরা।