সর্বজয়ার ম্যাজিকে ভেসে গেল খড়কুটো, মিঠাইকে চ্যালেঞ্জ দেবশ্রীর

১০ বছর পর ক্যামেরার সামনে ফিরে বাঙালির ‘কলকাতার রসগোল্লা’ চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে ছিলেন ইন্ডাস্ট্রিকে! পরিষ্কার ঘোষণা করেছিলেন, এইবার দেবশ্রী রায়ের (Debashree Roy) জীবনের নতুন ইনিংসে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি হবে বাংলা টেলিভিশন (Bengali Telivision) জগতে। সেই কথা রেখেছেন দেবশ্রী। প্রথম সপ্তাহেই তাবড় তাবড় বাংলা ধারাবাহিকগুলিকে (Bengali Mega Serial) টেক্কা দিয়ে তৃতীয় স্থানে পৌঁছে গিয়েছে ‘সর্বজয়া’ (Sharbojaya)। তিনি প্রমাণ করেছেন, দেবশ্রী ম্যাজিক আজও অটুট রয়েছে দর্শকের মনে।

প্রথম সপ্তাহে ৮.৫ পয়েন্ট নিয়ে টিআরপি তালিকায় তৃতীয় স্থানে ছিল ‘সর্বজয়া’। বৃহস্পতিবার চলতি সপ্তাহের টিআরপি তালিকা প্রকাশের পর দেখা গেল, ‘সর্বজয়া’ এই সপ্তাহেও নিজের অবস্থান ধরে রেখেছে। এই সপ্তাহেও তৃতীয় স্থানে পৌঁছে গিয়েছে ‘সর্বজয়া’। তবে ‘মিঠাই’কে টলাতে পারেনি সর্বজয়া। অন্যান্যবারের মতো ‘মিঠাই’ ম্যাজিক এই সপ্তাহেও অব্যাহত। বরং গত সপ্তাহের তুলনায় এই সপ্তাহে পয়েন্ট খানিক বাড়িয়ে নিয়েছে মিঠাই। ১২.২ পয়েন্ট পেয়ে ২২ তম সপ্তাহেও সেরার সেরা ‘মিঠাই’।

৯.২ পেয়ে দ্বিতীয় স্থান ধরে রেখেছে ‘অপরাজিতা অপু’। অপরপক্ষে ‘কৃষ্ণকলি’, ‘যমুনা ঢাকি’, ‘খড়কুটো’ ভেসে গিয়েছে সর্বজয়ার ম্যাজিকের কাছে। ‘কৃষ্ণকলি’, ‘যমুনা ঢাকি’ ৮ পয়েন্ট পেয়ে এবারেও যুগ্মভাবে চতুর্থ স্থান পেয়েছে। এদিকে বাড়ির খুদে সদস্য পুচুসোনাকে নিয়ে গুনগুনের কাণ্ডকারখানা ষষ্ঠ স্থান থেকে ‘খড়কুটো’কে তুলে এনে পৌঁছে দিয়েছে পঞ্চম স্থানে। ‘খড়কুটো’র প্রাপ্ত নম্বর ৭.৯।

এই সপ্তাহের কার্যত স্টার জলসাকে টেক্কা দিয়েছে জি বাংলা। ৬৮০ নম্বর পেয়ে এগিয়ে রয়েছে জি বাংলা। অন্যদিকে স্টার জলসার প্রাপ্ত নম্বর কেবল ৬৪৪। টিআরপি রেটিং চার্টের নিরিখে আপনার প্রিয় ধারাবাহিকের কোনটি কত পয়েন্ট পেয়ে কত নম্বর স্থান দখল করলো জানতে চান নিশ্চয়ই? নিচে রইলো সম্পূর্ণ বিবরণ।

গত সপ্তাহে ১১ নম্বর পেয়ে প্রথম স্থানে ছিল মিঠাই। এই সপ্তাহেও তার অবস্থান কেউ কেড়ে নিতে পারেনি। বদলে বাঙালির মিঠাইপ্রীতি বেড়ে মিঠাইয়ের প্রাপ্ত নম্বর হয়েছে ১২.২। অপরাজিতা অপু গত সপ্তাহে ৯ পয়েন্ট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে ছিল। চলতি সপ্তাহে তা সামান্য বৃদ্ধি পেয়ে ৯.২তে পৌঁছেছে। অপু রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। ৮.৫ নম্বর পেয়ে গত সপ্তাহে তৃতীয় স্থানে ছিল সর্বজয়া। এই সপ্তাহে ৮.৩ পেয়ে তৃতীয় স্থানেই রয়েছে নতুন ধারাবাহিকটি।

যমুনা ঢাকি এবং কৃষ্ণকলি গত সপ্তাহে ৭.৮ ও ৭.৯ পেয়ে যথাক্রমে চতুর্থ এবং পঞ্চম স্থানে ছিল। এই সপ্তাহে ৮ পেয়ে যৌথভাবে চতুর্থ হয়েছে এই দুই ধারাবাহিক। ৭.৩ পেয়ে গত সপ্তাহে ষষ্ঠ স্থানে ছিল খড়কুটো। এই সপ্তাহে তার প্রাপ্ত নম্বর ৭.৯। খড়কুটো রয়েছে পঞ্চম স্থানে। শ্রীময়ী এবং রোহিতের বিবাহ পর্ব ৬.২ থেকে সোজা ৭.২তে তুলে দিয়ে ষষ্ঠ স্থানে পৌঁছে দিয়েছে শ্রীময়ীকে।

৬.২ পেয়ে গত সপ্তাহে অষ্টম স্থানে ছিল মহাপীঠ তারাপীঠ। ৬.৭ পেয়ে এই সপ্তাহে সপ্তম স্থানে পৌঁছেছে এই ধারাবাহিক। গত সপ্তাহে ৭.২ পেয়ে সপ্তম স্থানে ছিল ‘কড়ি খেলা’। এই সপ্তাহের তা কমে দাঁড়িয়েছে ৬.৬তে। এই ধারাবাহিক রয়েছে অষ্টম স্থানে। করুণাময়ী রানী রাসমণি ৬.৫ পেয়ে গত সপ্তাহে নবম স্থানে ছিল। এই সপ্তাহেও তার প্রাপ্ত নম্বর এবং অবস্থানের পরিবর্তন হয়নি। তবে এর মাঝে টিআরপি বাড়িয়ে নিয়েছে ‘ডান্স বাংলা ডান্স’ ৬ থেকে ৬.৪ এ পৌঁছে গিয়েছে এই রিয়েলিটি শো।