৫ মাস কথা বন্ধ! কণ্ঠস্বর হারিয়েছেন বাপ্পি লাহিড়ী! জল্পনা এড়াতে মুখ খুললেন স্বয়ং বাপ্পীদা

নব্বই এর দশকে টলিউড (Tollywood) তথা বলিউড (Bollywood) জুড়ে ছিল তার রাজত্ব। তার সুরে, স্বরে এবং কম্পোজিশনের গানগুলিতে তখন শ্রোতার হৃদয় সম্পূর্ণরূপে ডুবে থাকতো। আজও শ্রোতার হৃদয়ে বাপ্পি লাহিড়ীর (Bappi Lahiri) স্থান সেই আগের মতই আছে। আধুনিক এই যুগে অনেক নতুন নতুন প্রতিভা এবং আধুনিক মিউজিকের দুনিয়াতেও বাপ্পি লাহিড়ী তার স্বমহিমায় শ্রোতাদের মনে বিরাজ করছেন। অথচ করোনার আঘাতে তারই কিনা কণ্ঠস্বর খোয়া গেল! বলিউডে গুঞ্জন, বাপ্পি লাহিড়ী নাকি কণ্ঠস্বরে হারিয়ে ফেলেছেন! গান গাওয়া তো দূরের কথা, তিনি কথাও বলতে পারছেন না।

এমনই এক মর্মান্তিক খবরে কোটি কোটি অনুরাগীর মন ভীষণ খারাপ হয়ে গিয়েছে। সকলেই এখন প্রিয় গায়কের দ্রুত সুস্থতা কামনা করছেন। তবে সত্যিই কি বাপ্পি লাহিড়ীর সঙ্গে এমন মর্মান্তিক ঘটনাই ঘটেছে? এই রটনার মধ্যে সত্য কতখানি? জানালেন বাপ্পি লাহিড়ী পুত্র বাপ্পা লাহিড়ী। তিনি জানাচ্ছেন, তার বাবা বাপ্পি লাহিড়ী যে কণ্ঠস্বর হারিয়ে ফেলেছেন, এই খবর সম্পূর্ণ ভ্রান্ত। বাবাকে নিয়ে মিথ্যা রটনা রটছে। বরং তার দাবি, তার বাবা এখন ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছেন। শীঘ্রই আবার গানের জগতে ফিরবেন তিনি।

তবে একথা ঠিক যে কয়েক মাস আগে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন এই তারকা। চলতি বছরের এপ্রিল মাসে বাপ্পি লাহিড়ীর শরীরে বাসা বাঁধে করোনা। তার শারীরিক পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে তাকে মুম্বাইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল। বাবার অসুস্থতার খবর পেয়ে ছেলে দ্রুত আমেরিকা থেকে মুম্বাইতে ফিরেছিলেন। সেই থেকে তিনি বাবার চিকিৎসার জন্য মুম্বাইতেই রয়েছেন।

বর্তমানে বাপ্পি লাহিড়ী অবশ্য করোনামুক্ত। তবে তার শরীর নাকি এখনও পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ওঠেনি। তিনি বাড়ি ফিরে আসার পর ইন্ডাস্ট্রির কয়েকজন গণ্যমান্য ব্যক্তি তার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন তার বাড়িতে। তাদের সঙ্গেও নাকি কথা বলতে পারেননি বাপ্পি লাহিড়ী। সেই অতিথিদের মধ্যে কেউ কেউ সংবাদমাধ্যমের কাছে জানিয়েছেন, এই বর্ষীয়ান সুরকারের শরীর আগের তুলনায় অনেক ভেঙে পড়েছে।

বাপ্পি লাহিড়ীর পরিবারের এক নিকট সদস্য জানিয়েছেন, বর্তমানে নিজের বাড়িতে হুইলচেয়ারে ঘোরাফেরা করেন এই প্রখ্যাত সুরকার। ভবিষ্যতে হেঁটে চলে বেড়ানোর জন্য চিকিৎসকেরা তার হাঁটু প্রতিস্থাপনের পরামর্শ দিয়েছেন। যদিও বাপ্পিপুত্র বাপ্পা জানাচ্ছেন, চিকিৎসকেরা হাটু প্রতিস্থাপনের পরামর্শ দিলেও এখনই তাদের কোনও তাড়া নেই।তিনি আশা রাখছেন তার বাবা শীঘ্রই আবার নিজের পায়ে হেঁটে চলে বেড়াতে পারবেন।

বাপ্পা আরও জানিয়েছেন, “কোভিডের পাশাপাশি বাবার ফুসফুসেরও সমস্যা দেখা দিয়েছিল। বাবাকে কথা বলতে বারণ করা হয়েছে। সেই কারণেই এমন গুজব রটেছে যে বাবা কন্ঠস্বর হারিয়ে ফেলেছেন। কিন্তু মনের জোর ধরে রেখেছেন তিনি”‌। তিনি জানালেন, পুজোর আগেই ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের সঙ্গে একটি গানের রেকর্ডিং করতে আগ্রহী বাপ্পি লাহিড়ী।