অটোর মধ্যেই বেসিন, স্যানিটাইজার, Wi-Fi, টিভি, ফ্যান, ডাস্টবিন, মারাত্বক ভাইরাল ভিডিও

18558

দিনকে দিন যত সময় হচ্ছে ততই আমাদের ব্যবহার্য জিনিসপত্র ও আধুনিক হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে অটোর এতোখানি আধুনিকীকরণ সত্যিই বিশ্বাস করা যায় না! হ্যাঁ অটোর আধুনিকীকরণ অটোর মধ্যে বসলে আপনি মিউজিক সিস্টেম, রং-বেরংয়ের লাইটিং অথবা ভগবানের ছবি দেখতে পান। কিন্তু কখনো কী দেখেছেন অটোর মধ্যে আস্ত একটা বেসিন অটোর সামনের সিটে রাখা হ্যান্ড স্যানিটাইজার? আর অটোর মধ্যে থাকা ওয়াইফাই পরিষেবা?

শুধু আপনি কেন এমন দৃশ্য কেউ কল্পনাই করতে পারেন না। দেখা তো অনেকদূর। তবে এবার দেখবেন। কারণ মুম্বাইয়ের একজন অটোচালক অটোর মধ্যেই এই সকল আধুনিক পরিষেবা দেওয়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু মানুষ চাইলে কী না পারে?

মুম্বাইয়ের একজন অটো চালকের অটোয় উঠলে আপনি চমকে যাবেন!সিটের নিচে  সবুজ রঙের কার্পেট। পিছনের ডানদিকে ঝুলছে গাছ লাগানো ছোট ছোট টব। পিছনের সিটে ঠিক বিপরীত দিকে রয়েছে একটি বেসিন। তার সাথে সেট করা আছে আয়না ও হাত ধোয়ার লিকুইড সাবান তার উপরে দু’টো ডাস্টবিন একটিতে শুকনো,অন্যটিতে ভিজে বজ্র ফেলার জন্য।

চালকের আসনের পিছনে রাখা একটি হ্যান্ড স্যানিটাইজার বোতল। এছাড়া ঐ অটোর মধ্যে রয়েছেন ওয়াইফাই পরিষেবা, স্মার্ট ফোনের চার্জিং পয়েন্ট, ব্লুটুথ স্পিকার এমনকি মোবাইল কানেক্টেড টিভি। গরম কালে যাত্রীদের সমস্যার কথা মাথায় রেখে তাদের জন্য খাবার জল ও ফ্যান ও অটোতে রেখেছেন অটোচালক।

এছাড়া করোনা নিয়ে মানুষকে সচেতন করার জন্য বিএমসির নানা নির্দেশিকার কথাও  উল্লেখ আছে অটোর গায়ে। একই সাথে করোনা যোদ্ধাদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।প্রবীণ নাগরিকদের এক কিলোমিটার পর্যন্ত বিনামূল্যে পরিষেবা দেন ওই অটোচালক। আর নবদম্পতিরা নিখরচায় সফর করতে পারেন ওই অটোতে।

অটোচালকের এই মানসিক মহানুভবতা, মানসিক সচেতনতার সাথে সাথে তার অটো ভাইরাল হয়ে গেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। মাহিন্দ্রা গ্রুপের চেয়ারম্যান আনন্দ মাহিন্দ্রার ও দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন এই অটোচালক।