মুকেশ আম্বানির থেকেও ধনী ছিলেন এই ব্যক্তি, আজ স্ত্রীর গয়না বেচে চালাচ্ছেন সংসার

Anil Ambani Vs Mukesh Ambani : আজ যে রাজা, কাল সে ফকির! মুকেশ আম্বানির থেকেও ধনী এই ব্যক্তির পরিণতি খুবই মর্মান্তিক

Anil Ambani Unknown Facts : এশিয়া মহাদেশের সবথেকে ধনী ব্যাবসায়ী মুকেশ আম্বানি (Mukesh Ambani) সেটা আমাদের সকলেরই জানা। তার বিলাসবহুল জীবনযাপন আমাদের সকলেরই নজর কাড়ে। কিন্তু জানলে অবাক হবেন মুকেশ আম্বানির থেকেও ভারতে আর এক জন ধনী ব্যাক্তি ছিলেন। তবে পরবর্তীতে ঋণ মেটাতে সেই ব্যাক্তিকে স্ত্রীর গহনাও বিক্রি করতে হয়েছিল। জানেন কী সেই ব্যাবসায়ী কে?চলুন জেনে নিই।

বর্তমানে মুকেশ আম্বানিই দেশের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি।তার মোট সম্পত্তির পরিমাণ ৮০৮,৭০০ কোটি টাকা। তবে একসময় মুকেশ আম্বানির থেকেও বেশি ধনী ছিলো তার ভাই অনিল আম্বানি (Anil Ambani)। সেই সময় অনিলের সম্পত্তির পরিমাণ ছিল ৪২ বিলিয়ন ডলার। কিন্তু বর্তমানে অনিল আম্বানি আর্থিকভাবে খুবই দুর্দশাগ্রস্থ। এখন প্রশ্ন উঠেছে এক সময় দাদার থেকেও ধনী থাকা অনিল আম্বানি কিভাবে পিছিয়ে পড়লেন ব্যবসার দিক দিয়ে?

ANIL MUKESH AND DHIRUBHAI AMBANI

আসলে ধীরুভাই আম্বানির মৃত্যুর পর দুই ভাইয়ের মধ্যে সমানভাবে ব্যবসা ভাগ হয়ে যায়। আশা করা হয়েছিল যে পিতার মৃত্যুর পর দুই ভাই মিলে রিলায়েন্স ব্যবসার প্রসারিত করবে, কিন্তু তেমনটা হয়নি। ধীরু ভাইয়ের মৃত্যুর দু বছরের মধ্যে দুই ভাইয়ের তিক্ততা প্রকাশ্যে আসে। এই সমস্যার সমাধান করেন তার মা কোকিলাবেন।

কোকিলাবেন তার দুই ছেলেকে সমস্ত সম্পত্তি ভাগ করে দেন। তেল শোধনাগর ও পেট্রোকেমিক্যাল ব্যবসা মুকেশ আম্বানির হাতে তুলে দেন, আর অন্যদিকে অনিল টেলিকম, ফিন্যান্স ও এনার্জি ইউনিট হাতে পান। এরপর দুই ভাই একে অপরের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। বলা হয় যে মুকেশ টেলিকম ব্যবসায় পা রাখবেন না, অন্যদিকে অনিল তেল শোধনাগার ও পেট্রোকেমিক্যাল থেকে দূরে থাকবেন।

ANIL AMBANI

প্রথমদিকে অনিলের ব্যবসা ভালো চললেও ২০০৮ সালে বিশ্বব্যাপী মন্দায় তিনি ক্ষতির সম্মুখীন হন। দক্ষিণ আফ্রিকার কোম্পানি এমটিএনএ সঙ্গে চুক্তিতে ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করেন আর তাতেই তিনি ক্ষতির মুখে পড়েন। তার পাশাপাশি চীনা ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েও তিনি আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েন।অনিলের মোট ক্ষতি হয় ৪০ বিলিয়ন ডলার। বর্তমানে তার সম্পত্তির পরিমাণ ১.৭ মিলিয়ন ডলার।

আরও পড়ুন : কত টাকা বেতন পায় মুকেশ আম্বানি ও নীতা আম্বানি? শুনলে বিশ্বাস হবে না

TINA MUNIM AND ANIL AMBANI

আরও পড়ুন : আম্বানির থেকে ২৪ গুণ বেশি বেতন পান রিলায়েন্সের এই কর্মী

এমনকি তিনি ২০২০ সালে নিজেকে দেউলিয়া বলে ঘোষণা করেছিলেন। আইনি মামলার টাকা পরিশোধ করতে তাকে তার স্ত্রীর গহনা পযন্ত বিক্রি করতে হয়েছিল। অন্যদিকে,২০১০ সালে চুক্তি শেষ হওয়ার পরই টেলিকম সেক্টরে প্রবেশের সিদ্ধান্ত নেন মুকেশ আম্বানি। এরপর ২০১৭ সাল পর্যন্ত ২.৫ লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেন। এরপরই বাজারে আসে রিলায়েন্স জিও। মুকেশ আম্বানির এই পদক্ষেপ তাকে এক ধাক্কায় ভারত তথা এশিয়ার ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় জায়গা করে নেন।

আরও পড়ুন : মুকেশ আম্বানির কাজের মেয়ে আজ এই জনপ্রিয় বলিউড নায়িকা