দাম্পত্য সুখ স্থায়ী হয়নি বেশি দিন, আজীবন বিবাহিত পুরুষকেই ভালোবেসেছেন, স্বীকার করলেন রেখা

সত্তর থেকে নব্ব‌ই দশক অবধি একাধিক নায়কের বিপরীতে অভিনয় করা বলিউডের ‘উমরাওজান’ রেখা (Rekha)আজ ও এভারগ্রীন। তার এন্ডলেস বিউটি এই প্রজন্মের নায়িকাদের পর্যন্ত টক্কর দিয়ে চলে। অভিনেত্রী  বরাবরই নিজের সৌন্দর্য ও ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে প্রচন্ড পরিমাণে সচেতন। নিজের ব্যক্তিগত জীবনকে জনসমক্ষে আনার পক্ষপাতী নন তিনি, তিনি একটু আড়ালে থাকতেই বেশি পছন্দ করেন। তাই স্বাভাবিকভাবেই ভক্ত-অনুরাগীদের তাকে নিয়ে কৌতুহলের শেষ থাকে না। আর রেখাও নিজের চারপাশে একটি রহস্যের ঘেরাটোপ তৈরি করে রাখেন। তবে সম্প্রতি একটি রিয়েলিটি শোতে গিয়ে রেখা জানান যে বিবাহিত পুরুষকেই তিনি ভালোবেসেছেন। তার এই অকপট স্বীকারোক্তি সকলকে বিস্মিত করেছে।

রেখার চলচ্চিত্র জীবনটা ঝাঁ-চকচকে হলেও দাম্পত্য জীবন টা খুব একটা সুখের নয়। ১৯৯০ এর মার্চ মাসে ব্যবসায়ী মুকেশ আগারওয়াল কে বিয়ে করেছিলেন রেখা তবে বিয়ের ৬  মাস পূর্ণ হ‌ওয়ার পর ২ রা অক্টোবর আত্মহত্যা করেছিলেন মুকেশ। তারপর আর জীবনে দ্বিতীয়বার বিয়ে করেননি রেখা। এরপর দীর্ঘ জীবনে বহুবার একাধিক নায়কের সাথে তার প্রেমের গুঞ্জন রটলেও ৩১ বছরের নিঃসঙ্গ জীবনে আর দ্বিতীয়বার বিয়ে করেননি রেখা।তবে মাঝে মধ্যেই বিভিন্ন অনুষ্ঠানে রেখার  মাথায় সিঁদুর  দেখা যায়। কার জন্য সিঁদুর পরেন জিজ্ঞেস করলে রেখা হেসে উত্তর দেন-সিঁদুর পরতে ভালো লাগে তাই পরেন। তবে উত্তরটা যত সহজ বিষয়টা হয়তো ততটা নয়।

সম্প্রতি ইন্ডিয়ান আইডল ১২ শোয়ের একটি প্রোমো সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে। এই রিয়েলিটি শোতে বিশেষ অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত হয়েছিলেন রেখা আর তখন শোয়ের উপস্থাপক জয় ভানুশালি বিচারক, নেহা কক্কর ও রেখার উদ্দেশ্যে প্রশ্ন করেন, “আপনারা কি কখনো দেখেছেন কাউকে কোন মহিলাকে কোন পুরুষের জন্য পাগল হতে, তাও বিবাহিত পুরুষের প্রেমে পড়তে?” জয় প্রশ্ন শেষ হওয়ার আগে রেখা বলে দেন, “আরে আপনি আমাকেই বলুন না”। রেখার উত্তর শুনে অবাক হয়ে যান জয়, নেহা কক্কর সহ বিশাল দাদলানিরাও। একথা শুনে দর্শকরা হাসতে থাকেন আর জয়কে বলতে শোনা যায়, “আরে ক্যায়া বাত হে একদম ছক্কা মেরেছেন রেখাজি”।

আসলে ১৯৭৬ এর ‘দো অঞ্জানে’র সেটে যখন প্রথম অমিতাভের (Amitabh bacchan) সাথে রেখার আলাপ হয়েছিল অমিতাভ তখন বিবাহিত তবে দুজনের প্রেম আটকায়নি। গোপনে আড়ালে-আবডালে চলতে থাকা দুজনের এই প্রেম  একসময়  জয়া বচ্চন(Jaya Bachchan) ও জানতে পারেন। শোনা যায় একবার নৈশভোজের আমন্ত্রণ এ জয়া রেখাকে ডেকে স্পষ্ট বলেছিলেন যে তিনি অমিতাভকে ডিভোর্স দেবেন না, এরপরই সম্পর্ক থেকে সরে এসেছিলেন রেখা। অমিতাভের সঙ্গে এই সম্পর্কের কথা বচ্চন পরিবার স্বীকার না করলেও রেখা অনেকবারই স্বীকার করেছেন।

সিমি গেরেওয়ালের টকশোতে তাকে এই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি উত্তর দিয়েছিলেন, ‘অবশ্যই! এটা খুব বোকা বোকা প্রশ্ন।’এরপর উত্তরটিকে সার্বিক করে বলেন, “আমি এমন কোনো পুরুষ মহিলা বা শিশুকে দেখি নি যে সম্পূর্ণরূপে প্রচণ্ডরকম ভাবে  ঐ মানুষটাকে ভালোবাসে না। আমিই বা কেন ছাই বাদ যাব?” এ প্রসঙ্গে রেখা আরও বলেছিলেন, “আপনি সত্যিটা জানতে চান? কোন পার্সোনাল কানেকশন ছিল না ওনার সঙ্গে। এটাই সত্যি। আমি কেন অস্বীকার করবো? আমি কি ওনাকে ভালোবাসি না? হ্যাঁ অবশ্যই ভালোবাসি। দুনিয়া ভর কা লাভ আপ লে লিজিয়েগা,আর‌ও কিছু জুড়ে দেবেন-সেটাই ওই মানুষটার জন্য আমি অনুভব করি এটাই ধ্রুব সত্য।”

একসময় রেখা অমিতাভের বিয়ের গুঞ্জন পর্যন্ত রটেছিল, তাই আজও যখন রেখা বিধবা হওয়ার পর মাথায় সিঁদুর পরেন তখন অমিতাভ অনুরাগীরা বলে থাকেন যে বিগ-বির মঙ্গল কামনার জন্য ই নাকি রেখা সিঁদুর পরেন। এই প্রশ্নের উত্তর আজ অবধি পাওয়া না গেলেও বলিউডে অমিতাভ-রেখার সম্পর্ক আজও যে সমানভাবে চর্চিত রিয়েলিটিশোয়ের প্রোমোটিই তার সবথেকে বড় প্রমান।