রেখাকে ছেড়ে কেন জয়াকে বিয়ে করেছিলেন অমিতাভ? এতদিনে সত্যিটা স্বীকার করলেন শাহেনশাহ

এই একটি বিশেষ কারণেই রেখাকে ছেড়ে জয়াকে বিয়ে করেছিলেন অমিতাভ

অমিতাভ বচ্চন (Amitabh Bachchan) এবং জয়া বচ্চনকে (Jaya Bachchan) বলা হয় বলিউডের পাওয়ার কাপল। তাদের সমকালীন এবং পরবর্তী দিনেও বলিউডের বহু সেলিব্রিটি জুটি বিয়ে করে পরে ভেঙেছিলেন সংসার। এমনকি অমিতাভ-জয়ার দাম্পত্য জীবনেও রেখাকে নিয়ে উঠেছিলে ঝড়। যদিও সমস্ত ঝড়-ঝাপটা সামলে ৫০ টা বছর একে অপরের সঙ্গে কাটিয়ে দিলেন অমিতাভ-জয়া।

জয়া-অমিতাভের এই জুটিটা গত ৫০ বছর ধরে একটা ট্রেন্ড সেট করে দিয়েছে। এত বছর বাদেও দুজনের সম্পর্কের রসায়ন কিন্তু নজর কাড়া। কিন্তু প্রশ্ন হল বলিউডের তাবড় তাবড় সুন্দরীদের ছেড়ে বাংলার এই মেয়েরই প্রেমে পড়েছিলেন অমিতাভ? কেন জয়া কি স্ত্রী হিসেবে পেতে চেয়েছিলেন তিনি? কৌন বনেগা ক্রোড়পতির সাম্প্রতিক একটি পর্বে এক প্রতিযোগী এই প্রশ্নের উত্তরে অকপটে মুখ খুললেন অমিতাভ।

সম্প্রতি চ্যানেলের তরফ থেকে ওই বিশেষ পর্বের একটি ঝলক তুলে ধরা হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়াতে। সেখানে হটসিটে বসে ওই প্রতিযোগী অমিতাভকেই প্রশ্ন করেন জয়াকে প্রথম দেখে তার কোন জিনিসটা ভাল লেগেছিল? প্রিয়াঙ্কা মহর্ষি নামের ওই প্রতিযোগীর প্রশ্নের উত্তরে শাহেনশা বলেন জয়ার একটি বিশেষ গুণের জন্যই তাকে তার প্রথম দেখাতেই ভাল লেগে গিয়েছিল।

১৯৭১ সালে ঋষিকেশ মুখোপাধ্যায়ের ‘গুড্ডি’ সিনেমার সেটে প্রথমবার অমিতাভ এবং জয়ার আলাপ হয়েছিল। তারপর থেকে তারা একাধিক সিনেমাতে অভিনয় করেন। ‘জঞ্জির’, ‘অভিমান’, ‘চুপকে চুপকে’, ‘শোলে’, ‘কাভি খুশি কাভি গম’সহ বহু সিনেমা রয়েছে তাদের ঝুলিতে। ১৯৭৩ সালে তাদের চার হাত এক হয়েছিল। পর্দাতে বহু নায়িকার সঙ্গে রোমান্স করলেও অমিতাভের জীবনের নায়িকা হয়েছেন একজনই, তিনি হলেন জয়া।

সব সুন্দরীদের টপকে জয়া কীভাবে অমিতাভের মনের নাগাল পেলেন? উত্তরে অমিতাভ বলেন জয়ার লম্বা চুলই নাকি তার পছন্দ হয়ে গিয়েছিল। কৌন বনেগা ক্রোড়পতির সেটে এদিন প্রিয়াঙ্কা মহর্ষি নামের ওই প্রতিযোগীর লম্বা চুলের প্রশংসা করেন অমিতাভ। তারপরেই তিনি জয়া এবং তার প্রেম রহস্যের খোলাসা করেন।

অমিতাভ বলেন, “আমি আমার বউকে বিয়ে করেছিলাম এই একটাই কারণে। কেন কি ওর চুল খুব লম্বা ছিল।” অমিতাভের কথা শুনে হাততালিতে ফেটে পড়েন উপস্থিত দর্শকরা। সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়েছে সেই ভিডিও ক্লিপিংস। দেখুন সেই ভাইরাল ভিডিও এই প্রতিবেদন থেকে।