কীভাবে কাটবেন শ্রমিক ট্রেনের টিকিট, ভাড়া দেবে কে, কেন্দ্রের নয়া নির্দেশিকা

বিভিন্ন রাজ্যে আটকে থাকা শ্রমিকদের ফেরাতে বিশেষ শ্রমিক ট্রেন চালাবে ভারতীয় রেল। টিকিটের মূল্য নির্ধারণ, বিক্রির পদ্ধতি, সামাজিক দূরত্ব রক্ষার নিয়ম ও অন্যান্য নিরাপত্তা জনক ব্যবস্থা স্থির করবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। স্টেশন, প্ল্যাটফর্ম ও ট্রেনের কামরায় কি ধরনের সুরক্ষা মূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে তা স্থির করবে রেল মন্ত্রক। আর আটকে থাকা শ্রমিকদের ফেরাতে যৌথভাবে উদ্যোগ নেবে শ্রমিক ফেরত পাঠানো ও শ্রমিক ফিরিয়ে নেওয়া রাজ্যগুলির সাথে রেল দফতর।

পূর্ব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শ্রমিক যাত্রীদের হয়ে ভাড়া মেটাবে যেসব রাজ্য থেকে শ্রমিকরা এসেছে সেই রাজ্যগুলি।কিন্তু সূত্রের খবর, বিনা পয়সায় ওই বিশেষ ট্রেনে চড়তে পারবেন না ভিন্ রাজ্যে আটকে পড়া মানুষ জন। এ জন্য রাজ্যকে টিকিটের দাম যাত্রীদেরই মেটাতে হবে। রাজ্যের থেকে পুরো অর্থ বুঝে নেবে রেল। রেলমন্ত্রকের এই সিদ্ধান্ত নিয়েই আপত্তি তুলেছে একাধিক রাজ্য। তাদের মতে, ভিন্ রাজ্যে আটকে পড়াদের অনেকেই এখন নিঃসহায় অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন। এমন অবস্থায় তাঁরা কী ভাবে টিকিটের দাম মেটাবেন। রেলকেই ওই খরচ বহন করার দাবি তুলেছেন বিরোধীরা।

অখিলেশ যাদব টুইট করে বলেছেন, ‘‘বিজেপি সরকার পরিযায়ী শ্রমিকদের ঘরে ফেরাতে তাঁদের থেকে টাকা নেবে। এটা লজ্জাজনক। এটা আজ পরিষ্কার হয়ে গেল যে, শাসক দল পুঁজিপতি ও ব্যবসাদারদেরই ঋণ মকুব করে এবং বড়লোকদেরই সাহায্য করে। এটা গরিব-বিরোধী। সঙ্কটের সময় যাঁরা টাকা ধার দেন তাঁরা শোষণ করেন, সরকার নয়।’’

আরও পড়ুন :- লকডাউনে মথাপিছু ৫০০ টাকা দেবে কেন্দ্র, কাদের কবে বিস্তারিত জানুন

এই শ্রমিক ট্রেনগুলি একজায়গায় যাত্রা শুরু করে নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছাবে। মাঝখানে কোথাও থামবে না। ট্রেনগুলি ৫০০ কিলোমিটারের বেশি দূরত্ব অতিক্রম করবে। যাত্রী সংখ্যা থাকবে ১২০০-এর মতো। ট্রেনের মাঝখানের সিটগুলি ফাঁকা থাকবে।
যাত্রীরা যেখান থেকে যাত্রা করবেন সেখানে তাদের পরীক্ষা করা হবে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের চিহ্ন কারো মধ্যে ধরা পড়লে তিনি যাওয়ার ছাড় পাবেন না। যারা পাবেন তাদের সার্টিফিকেট দেওয়া হবে ফোন নম্বর ঠিকানা সহ।

এই শ্রমিকদের জীবাণুমুক্ত বাসে করে স্টেশনে আনবে ফেরত পাঠানো রাজ্যগুলি নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে। একমাত্র সঠিক টিকিট থাকা ব্যক্তিরাই স্টেশনে প্রবেশ করতে পারবেন শ্রমিক ট্রেন ধরার জন্য। যেখান থেকে শ্রমিকরা ট্রেনে যাত্রা শুরু করবেন সেখানে খাবার প্যাকেট ও জলের বোতলের ব্যবস্থা করবে রাজ্য সরকার। প্রত্যেক যাত্রীকে বাধ্যতামূলক মুখে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। সবাই যাতে আরোগ্য সেতু অ্যাপ ব্যবহার করেন তার জন্য শ্রমিকদের ফেরত পাঠানো রাজ্যগুলিকে উদ্যোগ নিতে হবে।

আরও পড়ুন :- ১লা মে থেকে বদলে গেল ব্যাঙ্ক-এটিএম-রেলের একাধিক নিয়ম

যে ট্রেনগুলি ১২ ঘন্টার উপর যাত্রা করবে সে ট্রেনগুলিতে খাবারের ব্যবস্থা করবে রেল। যাত্রীরা নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছানোর পর সকল রকম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। ট্রেন দ্রুত খালি করে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে। ট্রেন চলাচলের সময় জরুরি পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে রেল দফতরকে।