প্রতিমাসে ৩০০০ টাকা পেনশন পাবেন কেন্দ্রের এই প্রকল্পে, জানুন আবেদন পদ্ধতি

অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মীদের জন্য ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে একটি পেনশন প্রকল্প চালু হয়েছে, যার  নাম “প্রধানমন্ত্রী শ্রমযোগী মন্ধন প্রকল্প’ বা সংক্ষেপে “PM-SYM’। এতে অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মীরা অবসরকালীন বয়সের পর থেকে মাসিক ভিত্তিতে একটা টাকা পান। এই প্রকল্পে অসংগঠিত ক্ষেত্রে কর্মীরও যেমন অবদান থাকে, তেমন কেন্দ্রীয় সরকারের ও একটি অবদান থাকে। সাধারণত ৫০:৫০ ভিত্তিতে এই অবদান হয়।

PM-SYM প্রকল্পের আওতায় কারা পরবেন?

এই প্রকল্পে অসংগঠিত ক্ষেত্রে কর্মীরা ৬০ বছর বয়সের পর মাসিক কমপক্ষে ৩০০০ টাকা করে পেনশন পাবেন। যে সকল ব্যক্তিরা ন্যাশনাল পেনশন স্কিম, এমপ্লয়েজ স্টেট ইন্সুরেন্স, কর্প স্কিম অথবা এমপ্লয়িজ প্রভিডেট ফান্ডের আওতায় পড়েন না তারাই এই প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেন।

কোনরকম আয়করের আওতার মধ্যে থাকা ব্যক্তি এই প্রকল্পের সুবিধা গ্রহন করতে পারবেন না।অসংগঠিত ক্ষেত্রে মাসিক ১৫ হাজার টাকার কম উপার্জনকারী ব্যক্তিরা এই প্রকল্পে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

১৮ থেকে ৪০ বছর  বয়সের মধ্যেই এই প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত হওয়া যাবে। ১৮ বছর বয়সে যদি কোন ব্যক্তি এই প্রকল্পে যুক্ত হন তাহলে তাকে মাসিক ৫৫ টাকা দিতে হবে, এর সঙ্গে সরকারের একটা অবদান যুক্ত হবে। ১৮ বছর বয়সের পর যত বেশি বয়সে ব্যক্তি অন্তর্ভুক্ত হবেন, সেক্ষেত্রে ঐ ব্যক্তির অবদানের পরিমাণ তত বাড়বে।

কোনও ব্যক্তি যদি ৬০ বছর বয়সের আগে মারা যান সে ক্ষেত্রে তার স্বামী অথবা স্ত্রী এই প্রকল্পটিকে চালিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন।

কীভাবে এই প্রকল্পের নাম নথিভুক্ত করবেন?

কমন সার্ভিস সেন্টার অর্থাৎ CSC-র মাধ্যমে এই প্রকল্পে নাম নথিভুক্ত করা যায়। LIC-তেও এই পরিষেবা কেন্দ্র আছে। পেনশন অ্যাকাউন্টটি খোলার জন্য ব্যক্তির আধার নম্বর ও ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নম্বর দরকার হয়।

এই প্রকল্পের দুটি সুবিধা আছে। একটি হলো, কেন্দ্র সরকারের অবদান। দ্বিতীয়টি হল মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগে কোনো গ্রাহক বেরিয়ে আসতে চাইলে সে ক্ষেত্রেও তিনি তার টাকা সুদ সমেত ফেরত পাবেন।

যদি কোন ব্যক্তি ১০ বছরের কম সময়ের মধ্যেই নিজের অ্যাকাউন্ট থেকে বেরিয়ে আসতে চান সে ক্ষেত্রে তিনি নিজের জমা করা টাকা এবং ওই টাকার উপর যে সুদ হয়েছে তা পুরোটাই ফেরত পাবেন। এক্ষেত্রে সুদ পাওয়া যাবে ব্যাঙ্কের সেভিংস অ্যাকাউন্টে সুদের হারে।

 

যদি কোন ব্যক্তি ১০ বছরের অধিক সময় এই অ্যাকাউন্টে টাকা জমা করে রাখেন তাহলেও তিনি বেরিয়ে আসতে পারবেন। সেক্ষেত্রে প্রকল্পের নির্ধারিত সুদ সহ গ্রাহকের জমা দেওয়া টাকা অথবা ব্যাঙ্কের সেভিং সুদের হার সহ গ্রাহকের জমা দেওয়া টাকা দুটোর মধ্যে যে টাকার পরিমাণটি বেশি হবে সেটাই গ্রাহক পাবেন। কেন্দ্র সরকারের এই প্রকল্পের অধীনে অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মীরা অবসরের পর একটা নিশ্চিত ভবিষ্যৎ খুঁজে পাবেন।