সিলিন্ডারে গ্যাস কম থাকলে শাস্তি পাবে ডিস্ট্রিবিউটার, লাগু হল নতুন আইন

করনার জেরে দেশজুড়ে দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম। মধ্যবিত্তের হেঁসেলে আগুন লাগিয়ে সঙ্গে পাল্লা দিয়ে প্রতিমাসে বাড়ছে রান্নার গ্যাসের দামও। এমত অবস্তায় মধ্যবিত্তের পক্ষে দুরূহ হয়ে উঠছে সংসার চালানো। সঙ্গে যোগ হয়েছে কালোবাজারি।

যার ফলে গ্রাহকদের সিলিন্ডারে যতটা গ্যাস থাকার কথা তার থেকে অনেক কম গ্যাস মিলছে। এই সব কালোবাজারি রুখতে কেন্দ্রীয় সরকার নিয়েছে একাধিক পদক্ষেপ যেগুলো ঠিকঠাক ভাবে অনুসরণ করলে কালোবাজারি রুখে দেওয়া সম্ভব।

কেন্দ্রীয় সরকারের নেওয়া এই নতুন পদক্ষেপে এখন থেকে গ্রাহকদের বাড়িতে গ্যাস সিলিন্ডার ডেলিভারি দেওয়ার সময় ডেলিভারি বয়কে উপভোক্তার রেজিস্টার্ড নম্বরে আসা ৪ ডিজিটের ওটিপি নম্বরটি বলতে হবে। আর সেই ওটিপি নম্বর ডেলিভারি বয় গ্যাস সিলিন্ডার বিলের সাথে সংযুক্ত করবেন।

এছাড়াও নিয়ম অনুযায়ী গ্রাহকদের গ্যাস সিলিন্ডারে গ্যাস কম আছে বলে সন্দেহ হলে সেই গ্যাস সিলিন্ডার ওজন করে সঙ্গে সঙ্গে জানাতে পারেন ডেলিভারি বয়কে। আর সে ক্ষেত্রে যদি দেখা যায় আপনার সন্দেহের সাথে বাস্তবটা মিলে যাচ্ছে তাহলে আপনি সঙ্গে সঙ্গে অভিযোগ করতে পারেন আপনার এজেন্সির কাছে অথবা এলপিজি হেল্পলাইন নম্বরে।

আরও পড়ুন :- গ্যাসের ভর্তুকির টাকা ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ঢুকছে কিনা দেখে নিন এইভাবে

গ্যাস সিলিন্ডারে এই কালোবাজারি রুখতে জুলাই মাসে কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে গ্রাহক সুরক্ষা আইন-২০১৯ চালু করা হয়েছে। সেক্ষেত্রে গ্যাস কম সরবরাহ করা হলে এজেন্সির বিরুদ্ধে তদন্ত করা হবে এবং লাইসেন্স বাতিলও করা হতে পারে। তবে অভিযোগ জানানোর ক্ষেত্রে প্রথমেই গ্যাস এজেন্সিকে জানানোর কথা বলা হয়েছে। সেক্ষেত্রে অভিযোগ পেয়ে যদি গ্যাস এজেন্সি কোনরকম পদক্ষেপ গ্রহণ না করে তাহলে সরাসরি কনজিউমার ফোরামে যোগাযোগ করতে পারবেন গ্রাহকরা।

এই নতুন আইন অনুযায়ী, নকল বা ভেজাল পণ্য বিক্রি করলে দোকানদারকে ৬ মাসের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং গ্রাহক ১ লক্ষ টাকা থেকে ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ক্ষতিপূরণ পেতে পারেন। গ্রাহক যদি বিক্রিত পণ্যটির মাধ্যমে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হন তাহলে বিক্রেতা ৭ বছরের সশ্রম কারাদন্ড এবং জেল এবং গ্রাহক ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ক্ষতিপূরণ পেতে পারেন। বিক্রিত সামগ্রীর কারণে কোনও গ্রাহক মারা গেলে তার পরিবার ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ক্ষতিপূরণ পেতে পারে এবং বিক্রয়কর্তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হতে পারে।

শুধু তাই নয়, নতুন এই আইনের আওতায় গ্রাহকদের বিভ্রান্তিমূলক বিজ্ঞাপন দিলেও উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অনলাইন এবং টেলিশপিং সংস্থাগুলিকেও এই আইনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এই নতুন আইনে কোনও গ্রাহক এক রাজ্যে পণ্য কিনে অন্য রাজ্যের ভোক্তা আদালতে মামলা করতে পারবেন। তেমনি গ্রাহকদের সমস্যা সমাধানের জন্য গ্রাহক বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন শুনবে।

আরও পড়ুন :- বেড়ে গেল গ্যাসের দাম, জানুন আপনার জেলায় সিলিন্ডার পিছু নতুন দাম

গ্যাস সরবরাহ করার ক্ষেত্রে গ্রাহক সুরক্ষা আইন-২০১৯ লাগু হওয়ার পর অভিযোগ জানানোর ক্ষেত্রে গ্রাহকদের সামনে অজস্র বিকল্প পথ তৈরি হয়েছে। এছাড়াও আইনে জানানো হয়েছে গ্যাস এজেন্সি গ্যাস সরবরাহ করার ক্ষেত্রে কোনো রকম প্রতারণা করলে তার বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।