শারীরিক নির্যাতন থেকে পরিচালকের লালসার শিকার, কোথায় হারিয়ে গেলেন ‘রঙ্গিলা’ নায়িকা উর্মিলা মাতন্ডকর

বলিউডের জঘন্য ষড়যন্ত্রে উর্মিলা মাতন্ডকরের মর্মান্তিক পরিণতি, জানলে গা শিউরে ওঠে

জীবনের একটি ভুল সিদ্ধান্ত কীভাবে গোটা জীবনটাই বরবাদ করে দেয় তার জলজ্যান্ত নজির উর্মিলা মাতন্ডকর (Urmila Matandkar)। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বলিউডের (Bollywood) নামী অভিনেত্রী হয়ে উঠেছিলেন উর্মিলা। চাইলেই তিনি টেক্কা দিতে পারতেন মাধুরী, শ্রীদেবীদের। কিন্তু এত বড় মাপের অভিনেত্রী হওয়া সত্ত্বেও খুব কম বয়সেই বলিউড (Bollywood) থেকে বিদায় নিতে হয় তাকে। যার পেছনের কারণ অনেকেই জানেন না।

মহারাষ্ট্রের একটি মারাঠি পরিবারে জন্ম নিয়েছিলেন উর্মিলা। ৯০ দশকের এই সুন্দরী অভিনেত্রীর অভিনয়ে হাতেখড়ি হয়েছিল মাত্র ৬ বছর বয়সে। মারাঠি ছবি ‘যাকোল’ ছিল তার অভিনীত প্রথম ছবি। এরপর শ্যাম বেনেগালের ‘কলিযুগ’ ছবিতে রেখা আর রাজ বব্বরদের সঙ্গে অভিনয় দিয়ে বলিউডে তার প্রবেশ ঘটে। শেখর কাপুরের ‘মাসুম’ ছবিতেও তিনি ছিলেন শিশু অভিনেত্রী। প্রাপ্তবয়সে সানি দেওল, ওম পুরি, ডিম্পল কাপাডিয়াদের সঙ্গে ‘নরসিমহা’ ছিল তার প্রথম ছবি।

দক্ষিণ এবং বলিউডে পরপর ছবিতে অভিনয় করলেও স্টারডমকে কিছুতেই ছুঁতে পারছিলেন না উর্মিলা। এই সময় তার জীবনে আসেন পরিচালক রামগোপাল বর্মা। রামগোপাল সেই সময় ‘দ্রোহী’ নামের একটি ছবি বানানোর কথা ভাবছিলেন মাধুরীকে নিয়ে। শেষমেষ সেই চরিত্রের জন্য তিনি উর্মিলাকে সুযোগ দেন। ছবিতে উর্মিলার অভিনয় তার এতটাই ভাল লেগে যায় যে তিনি এরপর থেকে তাকেই তার পরবর্তী বেশ কিছু ছবির নায়িকা বানিয়ে ফেলেন। যার মধ্যে অন্যতম ছিল ‘রঙ্গিলা’।

জ্যাকি শ্রফ এবং আমির খানের সঙ্গে ‘রঙ্গিলা’তে অভিনয় করে রাতারাতি গোটা দেশের নতুন ক্রাশে পরিণত হন উর্মিলা। সেই সময় রামগোপাল বর্মার প্রত্যেক ছবিতেই নায়িকা হতেন উর্মিলা। অভিনেত্রী পরিচালককে নিজের গুরু বলে মানতেন। তার পরামর্শ ছাড়া কোনও কাজ করতেন না। পরিচালকও উর্মিলাকে নিজের লাকি চার্ম আমি বলতেন। এদিকে পরিচালকের সঙ্গে উর্মিলার সম্পর্ক নিয়ে গুঞ্জন রটতে শুরু করে বলিউডে। বিষয়টা রামগোপালের স্ত্রীর কানে পৌঁছাতেই পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে ওঠে।

শোনা যায় পরিচালকের স্ত্রী নাকি উর্মিলাকে প্রকাশ্যেই চড় মেরেছিলেন। বিষয়টা মোটেও মানতে পারেনি রাম। তিনি তৎক্ষণাৎ স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়ে দেন। রামগোপাল বর্মা বারণ করেছিলেন বলে উর্মিলা শাহরুখ-মাধুরীর সঙ্গে ‘দিল তো পাগল হে’ ছবির প্রস্তাবও ফিরিয়ে দেন। এই ছবির প্রস্তাব ফিরিয়ে তিনি যে কত বড় ভুল করেছিলেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

এ পর্যন্ত সব ঠিকই চলছিল। আচমকাই রামগোপাল এবং উর্মিলার সম্পর্কে ঘটে যায় ছন্দপতন। পরিচালকের জীবনে আসেন অন্তরা মালি নামের নতুন এক অভিনেত্রী। উর্মিলার বদলে এরপর নিজের সব ছবিতেই রাম অন্তরাকেই নিতেন। অন্যদিকে ইন্ডাস্ট্রিতে ক্রমশ কোণঠাসা হয়ে পড়তে শুরু করেন উর্মিলা। শেষমেষ নতুন নায়িকাদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় হেরে তিনি অভিনয় ছেড়ে বিয়ে করে নেন নওসিন আখতার নামের এক কাশ্মীরি ব্যবসায়ীকে।

কিন্তু বিয়ের পরেও দুর্ভাগ্য তার পিছু ছাড়েনি। শোনা যায় তার স্বামী নাকি তার উপর শারীরিক নির্যাতন চালাতেন। কিন্তু কখনও এই বিষয়ে কোনও অভিযোগ করেননি অভিনেত্রী। অভিনয় ছেড়ে এরপর তিনি রাজনীতিতেও প্রবেশ করেন। কংগ্রেসের হয়ে নির্বাচনে লড়ে হেরে গিয়ে রাজনীতি থেকেও ইস্তাফা দেন অভিনেত্রী। আজ বয়স বেড়েছে, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বলিউডে জনপ্রিয়তা কমেছে বটে তবে ‘রঙ্গিলা’ অভিনেত্রী উর্মিলাকে আজও ভুলতে পারেননি দর্শকরা।