মৃত্যুর আগের রাত কেটেছে ভয়ঙ্কর, আসলে কী ঘটেছিল ঐন্দ্রিলার, কীভাবে মারা গেলেন তিনি

মৃত্যুর আগের রাতে কেমন ছিলেন ঐন্দ্রিলা, কী কী ঘটেছিল তার সঙ্গে

মিরাকেল হতে হতেও শেষমেশ ব্যর্থ হল সব প্রার্থনা। সব লড়াইয়ের অবসান ঘটিয়ে প্রয়াত হলেন অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মা (Aindrila Sharma)। মাত্র ২৪ বছর বয়সে অভিনেত্রীর এমন পরিণতির কথা মানতে পারছেন না তার প্রিয়জনেরা। ঐন্দ্রিলার লড়াইটা শুরু হয়েছিল সেই ২০১৫ সাল থেকে। মাত্র ১৭ বছর বয়স থেকে ক্যান্সারের সঙ্গে লড়ছিলেন তিনি। সেই লড়াইটা ভালই ভালই জিতে নিলেও নভেম্বর মাসেই ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে ২০ দিনের মাথাতেই প্রয়াত হলেন অভিনেত্রী।

গত ২০ দিন ধরে হাওড়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন ঐন্দ্রিলা। শেষের দিকে তার চোখের পাতা নড়ছিল না, দেহে কোনও সাড় ছিল না। কোমার একেবারে শেষ পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছিলেন তিনি। তার চেতনার স্তর ৩-এ নেমে এসেছিল। সাধারণত এই স্তরকে কোমার শেষ পর্যায় বলে ধরে নেওয়া হয়। মানুষের চেতনার স্তর মাপার এই পদ্ধতিটিকে বলা হয় গ্লাসগো কোমা স্কেল।

Aindrila Sharma

সাধারণত একজন সুস্থ স্বাভাবিক মানুষের চেতনা স্তর ৫-১৫ এর মধ্যে থাকে। রোগী মস্তিষ্কে আঘাত পেলে তার চেতনার পরিমাপের জন্য এই স্কেল ব্যবহৃত হয়। গ্লাসগো কোমা স্কেলের মান যত কম হয় রোগীর মৃত্যুর আশঙ্কা তত বাড়ে। ১লা নভেম্বর স্ট্রোকের পর ঐন্দ্রিলা কোমায় চলে গিয়েছিলেন। তখন তার কোমার মাত্রা ছিল ৩। চিকিৎসকদের মতে চেতনাস্থ্যের এত নিচে নেমে গেলে সেখান থেকে সুস্থ হয়ে ফিরে আসার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ হয়ে পড়ে।

হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর থেকেই ঐন্দ্রিলার শারীরিক পরিস্থিতি ওঠা-নামা করেছে। তার শারীরিক পরিস্থিতি প্রথম দিকে এতটাই খারাপ ছিল যে তাকে ভেন্টিলেশনে রাখতে হয়েছিল। স্ট্রোকের পর মস্তিষ্কে জমাট বাঁধা রক্ত সরিয়ে ফেলতে অপারেশন করাতে হয়েছিল। এরপর একটু সুস্থ হলে তাকে ভেন্টিলেশন থেকে বার করেও আনা হয়। তবে আচমকারী গত শুক্রবার তার পরিস্থিতির অবনতি ঘটে।

মাঝে অবশ্য সাময়িক বিপদ কাটিয়ে উঠেছিলেন ঐন্দ্রিলা। মিরাকেলের উপর ভরসা রেখে তার ফিরে আসার প্রতীক্ষা করছিলেন সকলে। আচমকাই পরপর ২ বার তার হার্ট অ্যাটাক হয়। এই সঙ্গীন পরিস্থিতিতে এই দুঃসংবাদ স্বভাবতই তার জন্য আশঙ্কা বাড়িয়েছিল। মৃত্যুর আগের রাত অর্থাৎ শনিবার রাত ছিল আরও ভয়ংকর।

শনিবার রাত থেকে রবিবার সকাল অব্দি পরপর ১০ বার হার্ট অ্যাটাক হয় ঐন্দ্রিলার। এরপর সিপিআর দিলে তার অবস্থা কিছুটা স্থিতিশীল হয়। তবে রবিবার দুপুর ১.০০ টা নাগাদ সব চেষ্টা ব্যর্থ করে প্রয়াত হলেন অভিনেত্রী। ক্যান্সারের সঙ্গে বারবার লড়াই করে জিতে ফিরলেও শেষমেষ নিয়তির কাছে হার মেনে নিতেই বাধ্য হলেন ঐন্দ্রিলা।