অবস্থা স্থিতিশীল নয়, ঐন্দ্রিলার মস্তিষ্কে জমাট বাঁধছে রক্ত, জানালেন চিকিৎসকরা

আরও খারাপ হচ্ছে অবস্থা, ঐন্দ্রিলার অবস্থা স্থিতিশীল নয় বলেই জানালেন চিকিৎসকরা

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিস্থিতির উন্নতি নয় বরং আরও বেশি সংকটের মুখে চলে যাচ্ছেন ঐন্দ্রিলা শর্মা (Aindrila Sharma)। আনন্দবাজার অনলাইন থেকে পাওয়া খবর অনুসারে ঐন্দ্রিলাকে নিয়ে এমনটাই জানিয়েছেন তার চিকিৎসকরা। ২ সপ্তাহ আগে ব্রেন স্টোকে আক্রান্ত হয়ে হাওড়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ঐন্দ্রিলা। তবে এখনও তার জ্ঞান ফেরানো সম্ভব হয়নি।

মস্তিষ্কের অস্ত্রপচারের পর ভেন্টিলেশনেই রাখা হয়েছিল ঐন্দ্রিলাকে। গত শুক্রবার তার পরিস্থিতিতে কিছুটা উন্নতি হতেই তাকে ভেন্টিলেশনের সাপোর্ট থেকে বের করে আনা হয়। তবে শনিবার থেকেই তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। বর্তমানে হাসপাতালে রিপোর্ট অনুসারে ঐন্দ্রিলার রক্তচাপ ওঠানামা করছে। তার ভেন্টিলেশনের মাত্রাও বাড়ানো হয়েছে।

মঙ্গলবার স্ক্যান করার পর যে রিপোর্ট ডাক্তারদের হাতে এসেছে সেখানে দেখা যাচ্ছে ব্রেন স্ট্রোকের পর মাথার যে পাশে অস্ত্রপচার হয়েছিল তার বিপরীত দিকে রক্ত জমাট বেঁধেছে। এই রিপোর্ট দেখে চিকিৎসকদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে। এর মধ্যেই তার সমস্ত ওষুধ বদলে নতুন অ্যান্টিবায়োটিক চালু করা হয়েছে। এতে তার শরীর সাড়া দিচ্ছে কিনা তা সব সময় পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

হাসপাতালের তরফ থেকে জানানো হয়েছে ঐন্দ্রিলার মাথায় নতুন করে যে রক্ত জমাট বেঁধেছে তা আকারে এতটাই ক্ষুদ্র যে অস্ত্রপচার করা যাবে না। ওষুধের মাধ্যমে তা কমানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। এদিকে আবার নতুন করে সংক্রমণে ভুগছেন ঐন্দ্রিলা। যে কারণে তার জ্বর কমছে না। পরিস্থিতি তাই আগের থেকে অনেকটাই সংকটজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহেও ঐন্দ্রিলা দ্রুত সেরে উঠবেন বলে আশার আলো দেখতে পাচ্ছিলেন চিকিৎসকরা। কিন্তু এই সপ্তাহে পরিস্থিতি একেবারেই বদলে গিয়েছে। অভিনেত্রীর কাছের মানুষেরাও ভীষণ উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন। সোমবার ঐন্দ্রিলার কাছের মানুষ সব্যসাচী চৌধুরী সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট করে সবাইকে ঐন্দ্রিলার জন্য প্রার্থনা করতে বলেছেন। এখনও মিরাকেলের উপরই ভরসা রাখছেন সব্যসাচী।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন সংক্রমণের মাত্রা জানার জন্য সমস্ত প্রোটোকল মেনে স্বাস্থ্য পরীক্ষা হচ্ছে। প্রয়োজনে মেডিকেল টিম সমস্ত রিপোর্ট খতিয়ে দেখবে বলেও জানা গিয়েছে। ঐন্দ্রিলা এখনও ঘোরের মধ্যে রয়েছেন। যেহেতু তার বয়স কম তাই তিনি লড়াই করতে পারবেন বলেই আশা দেখিয়েছেন চিকিৎসকরা।