ক্যান্সার সারিয়ে বেঁচে ফেরার অনুপ্রেরণা, ঐন্দ্রিলাকে বিশেষ সম্মানে পুরস্কৃত করলেন মুখ্যমন্ত্রী

ক্যান্সারজয়ী ঐন্দ্রিলাকে বিশেষ সম্মানে ভূষিত করলেন মুখ্যমন্ত্রী, আবেগাপ্লুত অভিনেত্রী

AINDRILA SHARMA

বাংলা টেলিভিশন (Bengali Telivision) অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মাকে (Aindrila Sharma)আজ‌ সকলেই চেনেন। একজন অভিনেত্রী হিসেবেই শুধু নয়, তিনি একজন প্রকৃত জীবনযোদ্ধা। বিগত কয়েক বছর ধরে ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে আসছেন তিনি। টানা বেশ কয়েকটা বছর লড়াইয়ের পর আজ তিনি ক্যান্সারকে হারিয়ে সম্পূর্ণ সুস্থ। জীবনের পথে ফিরে এসে অনেকের কাছেই অনুপ্রেরণা হয়ে উঠেছেন ঐন্দ্রিলা।

ক্যান্সারের বিরুদ্ধে ঐন্দ্রিলার এই জীবনমুখী লড়াইয়ের সাক্ষী থেকেছেন নেটিজেনরা। তিনি যেভাবে লড়াই চালিয়ে গিয়েছেন তা অনেকের কাছেই অনুপ্রেরণা। ঐন্দ্রিলার সুস্থতার জন্য কামনা করেছিলেন তার হাজার হাজার ভক্ত। সকলের প্রবল ইচ্ছাশক্তি এবং শুভকামনার জেরে ঐন্দ্রিলা আজ সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠতে পেরেছেন। তার এই লড়াইকে সম্মান জানানো হলো টেলি একাডেমি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে।

সম্প্রতি স্টার জলসার তরফ থেকে টেলি একাডেমি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেখানে বাংলা টেলিভিশনের জনপ্রিয় অভিনেতা এবং অভিনেত্রীরা উপস্থিত ছিলেন। বিভিন্ন বিভাগে পুরস্কার উঠেছে তাদের হাতে। তাদের মধ্য থেকে একটি পুরস্কার তোলা ছিল ঐন্দ্রিলার জন্য। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত থেকে সেই পুরস্কার নিয়েছেন ঐন্দ্রিলা। সেই বিশেষ মুহূর্তটিকে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করে নিয়েছেন তিনি।

এই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রীর হাত থেকে পুরস্কার নেওয়ার জন্য ঐন্দ্রিলার নাম ঘোষণা করছেন সঞ্চালিকা জুন মালিয়া। ঐন্দ্রিলা মঞ্চে উঠে এসে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত থেকে নিলেন সেই পুরস্কার। এই ভিডিওটি ফেসবুকে শেয়ার করে তিনি ক্যাপশনে লিখেছেন ‘Touched’। গত ২ বছর ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করার জন্য কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে তাকে। ২ বছর পরে পুরস্কার পেয়ে তিনি আপ্লুত বোধ করছেন।

খুব ছোট বয়স থেকেই মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন ঐন্দ্রিলা। যখন তার বয়স মাত্র ১৭ বছর তখন থেকেই তার লড়াই শুরু হয় বোন ম্যারো ক্যান্সারের বিরুদ্ধে। এই কঠিন লড়াইয়ের তিনি পাশে পেয়েছিলেন তার প্রেমিক সব্যসাচী চৌধুরীকে। চিকিৎসার পর সেরে উঠে ৬ বছর তিনি সুস্থ ছিলেন। তারপর আবার ক্যান্সার থাবা বসায় তার শরীরে। আবার শুরু হয় এক কঠিন লড়াই। যদিও এই লড়াইয়ের শেষে আবারও শেষ হাসি হেসেছেন ঐন্দ্রিলা।