নির্ভুল বাংলা উচ্চারণে খালি গলায় নাইজেরিয়ান যুবকের রবীন্দ্রসঙ্গীত ভাইরাল

African Boy Giyata Singing Rabindra Sangeet

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (Rabindranath Tagore) কখনোই একটি নির্দিষ্ট জাত, ধর্ম, দেশ, কাল, পাত্রের গণ্ডিতে সীমাবদ্ধ নন। তার বিস্তৃতি ব্যাপক। সারা পৃথিবীর মানুষই তার গুণের সমাদর করেন। তার রচিত গান, কবিতা, নাটক, প্রবন্ধ, গল্প, উপন্যাস কার্যত সারা পৃথিবীর সাহিত্যের ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করেছে। তিনি আজও মানুষের মনে তার সৃষ্ট সাহিত্যরসের মধ্যেই বেঁচে রয়েছেন। সাহিত্য এবং সঙ্গীতের অনুরাগীরা তার প্রদর্শিত পথ অনুসরণ করেন। সঙ্গীতানুরাগীদের জন্য রবীন্দ্রনাথের বিশেষ অবদান তার ‘গীতাঞ্জলি’ কাব্যগ্রন্থটি।

সৃষ্টির পর আজ এত বছর পেরিয়েও ‘গীতাঞ্জলি’ কাব্যগ্রন্থে মুদ্রিত রবীন্দ্রনাথের গান নিয়ে চর্চার অন্ত নেই। আজও সংগীতের দুনিয়ার একটি বড় অংশ জুড়ে রয়েছেন রবীন্দ্রনাথ। তাকে ছাড়া সঙ্গীত দুনিয়া অসম্পূর্ণ। রবি ঠাকুরের গান (Rabindrasangeet) ছাড়া কার্যত কোনও অনুষ্ঠানই শুরু করা যায় না। শুধু বাংলা নয়, আপামর ভারতবর্ষ এমনকি ভারতের গন্ডী পেরিয়ে সুদূর বিদেশেও রবীন্দ্রনাথের গানের সুরে গুনগুনিয়ে ওঠেন বিদেশীয়রা।

রুশ, জার্মানি এমনকি আফ্রিকাতেও (Africa) রবীন্দ্রসঙ্গীতের চল রয়েছে। তাও আবার সম্পূর্ণ বাংলা ভাষাতে। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ধরা পড়েছে সেই ভিডিও। যে ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে এক নাইজেরিয়ান যুবক রবীন্দ্র সংগীত গাইছেন। নাইজেরিয়ার গায়ক জিয়াতা (Giyata) রবীন্দ্রসঙ্গীতের প্রেমে মজেছেন। ‘মায়াবন বিহারিণী হরিণী’ গানটি তার এত ভাল লেগে গিয়েছে যে তিনি খোলা গলাতেই সেই গান ধরেছেন ক্যামেরার সামনে।

বিদেশি এক যুবকের গলায় রবীন্দ্র সংগীত শুনে আপ্লুত এদেশীয়রা। ভাইরাল হওয়া এই ভিডিও শুরুতেই অবশ্য জিয়াতা তার গানের শিক্ষক ‘মোনালিজি’র প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। ভাঙ্গা ভাঙ্গা ইংরেজিতে তিনি তার রবীন্দ্রসঙ্গীতের শিক্ষককে কৃতজ্ঞতা দিয়েই একেবারে স্পষ্ট বাংলা উচ্চারণে গাইলেন রবীন্দ্রসংগীত। তার গান শুনে বেশ বোঝা যাচ্ছে যে বাংলা থেকে দূরে সুদূর নাইজেরিয়াতেও একজন গায়ক রয়েছেন, যিনি বাংলা গানের চর্চা করেন।

নেট মাধ্যমেই সেই গান এসে পৌঁছেছে বাঙ্গালীদের কানে। এক বিদেশীয়ের গলায় এমন সুন্দর রবীন্দ্র সংগীত শুনে জিয়াতার প্রশংসা না করে থাকতে পারছেন না কেউই। ভিডিও নিচের কমেন্ট বক্স ভরে উঠছে প্রশংসাসূচক কমেন্টে। প্রসঙ্গত, আশিস স্যান্যাল নামের জনৈক এক নেটিজেন প্রথম ফেসবুক থেকে জিয়াতাকে খুঁজে বের করেন। এরপর তিনিই নিজের ফেসবুকের পাতায় জিয়াতার গাওয়া গানের ভিডিওটি শেয়ার করেন।

নাইজেরিয়ার এক যুবকের গলায় রবীন্দ্র সংগীত এবং তার মুখে স্পষ্ট বাংলা উচ্চারণ শুনে অবাক হয়েছেন নেটিজেন। গান শুনে নেটিজেনদের মধ্যে থেকে কেউ লিখলেন, “অপূর্ব”। কেউ লিখেছেন, “বড়ই শ্রুতিমধুর”। আবার কেউ লিখলেন, “সুন্দর লাগলো”। “দারুন অনুভুতি হলো”, জিয়াতার গান শুনে এমনও লিখেছেন জনৈক নেটিজেন। সংস্কৃতিমনস্কদের বড়ই পছন্দ হয়েছে এই গান। বর্তমান প্রজন্মে বাঙালি হয়েও বাংলা ভাষাকে যারা ব্রাত্য বলে মনে করেন, তাদের জন্য এই ভিডিও যথার্থ বার্তা বহন করে।