দিদিকে ঠকিয়ে ধর্ষণ ও বধূ নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেফতার শুভশ্রীর জামাইবাবু

Subhasree Ganguly Raj Charaborty and Deboshree Ganguly

চলতি বছরের এপ্রিল মাসেই বিয়ে হয়েছিল টলিউড অভিনেত্রী শুভশ্রী গাঙ্গুলীর (Subharess Ganguly) দিদি দেবশ্রীর (Debasree Ganguly)। ২রা এপ্রিল দিদির নিতান্তই ঘরোয়া বিয়ের অনুষ্ঠানে দিদিকে নিজের হাতে সাজিয়েছিলেন শুভশ্রী। নবদম্পতির মালাবদল, রেজিস্ট্রি, ওয়েডিং ফটোশুটের ছবিতে ভরে উঠেছিল নেট দুনিয়ার গ্যালারি। তবে বিয়ের পর মাস দুয়েকও স্বামীর সঙ্গে সংসার করতে পারলেন না দেবশ্রী। স্বামী অমিত ভাটিয়ার (Amit Vatia) বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ তুলেছেন দেবশ্রী।

তার স্বামী অমিত ভাটিয়া (Amit vatia) এক তরুণীকে ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত! এই খবর জানার পরেই নববিবাহিত সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসতে একমূহূর্তও দেরী করেননি দেবশ্রী (Debasree Ganguly)। পাশাপাশি এই ২ মাসের মধ্যে অমিত তার উপর এবং তার সন্তানের উপর যেভাবে শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন চালিয়েছেন, তার বিরুদ্ধেও পুলিশের কাছে গিয়ে তিনি নিজের অভিযোগ জানিয়েছেন। যার পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৭ই জুন অমিত ভাটিয়াকে (Amit vatia) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

অমিতের বিরুদ্ধে ঠিক কী কী অভিযোগ তুলেছেন দেবশ্রী? তিনি জানাচ্ছেন বিয়ের ঠিক ১০ দিনের মাথাতেই অমিতের ব্যবহারে পরিবর্তন লক্ষ্য করেন তিনি। সংবাদমাধ্যমের সামনে দেবশ্রী জানিয়েছেন, ”১০ই এপ্রিল থেকে ওর (অমিত ভাটিয়ার) ব্যবহারে পরিবর্তন আসে। আমার এবং আমার ছেলের উপর মানসিক অত্যচার শুরু হয়, চেঁচিয়ে কথা বলা, ঝগড়া করা, এইসব। আমি ভীষণই সুখী পরিবারে বড় হয়েছি, তাই অবাক হতাম। এরপর মানসিক, শারীরিক অত্যাচার শুরু হয়”।

অমিতের বিরুদ্ধে আর্থিক তছরুপের অভিযোগও এনেছেন তিনি। দেবশ্রী জানালেন, “গত ফেব্রুয়ারি মাসে ও আমার থেকে এবং আমার বাবার থেকে টাকা নিয়েছিল, প্রায় ৮ সাড়ে ৮ লক্ষ টাকা। উনি ইনসিওরেন্স আছেন”। স্বামীর বিরুদ্ধে যে ধর্ষণের মামলা রয়েছে, বিয়ের আগে সে কথার বিন্দুবিসর্গ তিনি কিছুই জানতেন না। অমিত এবং তার মা তাকে সবকিছু গোপন করে গিয়েছিলেন বলেই অভিযোগ করেছেন দেবশ্রী।

তিনি বলেন, “ঘনিষ্ঠ মুহূর্তে ওর কিছু ব্যবহারে আমার সন্দেহ হয়। একদিন আমাকে হঠাৎ করেই ছেড়ে বাগুইআটি বাড়িতে চলে যায়। এরপর থেকেই আমি ওঁর বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া শুরু করি। জানতে পারি ২২ জানুয়ারি ওর বিরুদ্ধে বারাসত আদালতে একটি ধর্ষণের মামলা দায়ের হয়েছে। যে যুবতী মামলা দায়ের করেছে, ওই মেয়েটির সঙ্গে আমি যোগাযোগ করি। ওর কথা শুনে আমি হতবাক, ওইদিন সারারাত ঘুমতে পারিনি”।

তিনি আরও বলেছেন, “ওই মেয়েটির সঙ্গে অমিত এবং আমার শাশুড়ি মা দুজনেই অন্যায় করেছেন। আমি বিয়ের আগে এসব কিছুই জানতে পারলে কখনও ওকে বিয়ে করতাম না। কীভাবে এগুলো সমর্থন করব? সংসার বাঁচানোর জন্য? তাহলে আমি আমার ১৭ বছরের ছেলেকে কী শেখাব? আমার ছেলেকে ভালো শিক্ষা দিতে চাই। ওকে আমি কীভাবে এই পরিবেশে রাখব? ও জানবে যে ওর মা যাঁর সঙ্গে থাকে সে ধর্ষক! আর আমি যখন আমার শাশুড়ি মাকে এসব জানালাম, উনি উল্টে আমাকেই দোষ দিচ্ছেন”।

অমিতের বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে গত ১৭ই জুন টেকনো সিটি থানায় শারীরিক এবং মানসিক অত্যাচারের অভিযোগ দায়ের করেন দেবশ্রী। সেই দিনেই অমিত ভাটিয়াকে গ্রেপ্তার করে তার পুলিশ। পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে ৪৯৮, ৪০৬, ৪৬৭, ৪৬৮, ৪৭১, ৩৭৭ এবং ১২০B ধারায় মামলাও দায়ের করা হয়েছে। এর পরেই তাকে আদালতে তোলা হয় এবং বিচারক তাকে ৭ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন। অমিতের তরফের আইনজীবী অবশ্য দাবি করছেন, “দেবশ্রী যে ১০ পাতার বিবৃতি দিয়েছেন, তা স্ববিরোধী বক্তব্যে ভরা। এই বিবৃতিতে স্পষ্ট এই ঘটনার পিছনে অন্য কোন উদ্দেশ্য লুকিয়ে রয়েছে”।