বোনের সঙ্গে “নোংরা” ভিডিও, ভিডিও ভাইরাল হতেই আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন অভিনেতা সৌরভ দাস

সোশ্যাল মিডিয়া বড় নিষ্ঠুর জায়গা! এখানে কারোর প্রতি রাগ থাকলে প্রকাশ্যে তার এবং তার বাবা-মাকে জড়িয়ে কটু কথার বন্যা বইয়ে দিতে সময় লাগে না। নেটিজেনরা একবারও ভেবে দেখেন না যাকে নিয়ে বা যার সম্পর্কে কটূ কথা বলছেন, তার এবং তার পরিবারের উপর দিয়ে কি ঝড় বয়ে যেতে পারে। “মা-ছেলে”, “বাবা-মেয়ে”, “ভাই-বোন” এর সম্পর্কগুলি ভারতীয় সংস্কৃতিতে অত্যন্ত পবিত্র বলে মানা হয়। সেখানেও নোংরা মানসিকতার ক্লেদ লাগাতে দ্বিধা করেননা একদল মানুষ।

সম্প্রতি সমাজের এই চূড়ান্ত ক্লেদাক্ত মানসিকতার পরিচয় পেয়েছেন অভিনেতা সৌরভ দাস। একুশের ভোট মঞ্চে তৃণমূল দলে যোগদান করার পরপরই তার জীবনে অদ্ভুত এবং করুণ পরিবর্তন ঘটে যায়। তৃণমূল দলে যোগদান করার ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেয়ে যায় সৌরভের একটি ভিডিও। যা শুধু তাকে একা নয়, তার পুরো পরিবারকেই মানসিকভাবে বিধ্বস্ত করে তুলেছিল।

ভিডিওটি দেখা যাচ্ছিল সৌরভ তার বাবা এবং বোনের সঙ্গে নিজের জন্মদিনের অনুষ্ঠান পালন করছেন। সেই সময় বোনের সঙ্গে তার একটি বিতর্কিত দৃশ্য নেটিজেনদের নজর কাড়ে। ওই দৃশ্যে নেটিজেনদের মনে হয়েছিল সৌরভ যেন তার বোনের বুকে হাত দিয়ে রয়েছেন! ব্যাস, এই দৃশ্য দেখার পর থেকেই নেট দুনিয়া সৌরভের বিরুদ্ধে কটুক্তিতে ভরে ওঠে। শুধু সৌরভ একা নন। নেটিজেনদের নিশানায় ছিলেন তার মা এবং তার বোনও।

নেটিজেনরা ওই দৃশ্যের স্ক্রিনশট তুলে সেখানে সৌরভের হাতের উপর গোল দাগ দিয়ে তা নেট দুনিয়ায় ভাইরাল করতে থাকেন। একইসঙ্গে সৌরভ এবং তার বোনকে নিয়ে নেটদুনিয়া কুরুচিকর মন্তব্যে ভরে ওঠে।  ‘ভাই-বোনের নোংরামো’, ‘বোনের বুকে হাত দিয়ে রয়েছেন সৌরভ। কিন্তু সামনে ক্যামেরা ছিল, সে কথা ভুলে গিয়েছেন।’, ‘তৃণমূলকর্মীর আসল পরিচয়’ ইত্যাদি আরও কত কি অশ্লীল বাক্য প্রয়োগ করা হয়েছিল সৌরভের প্রতি। এমনকি তার জীবনের অত্যন্ত কাছের দুই মহিলা সদস্য, মা এবং বোনের প্রতিও বিষোদগার করছিলেন নেটিজেনরা।

সম্প্রতি এক সাক্ষাতকারে তিনি জানিয়েছেন, “মা যদি সেদিন না আগলাত তাহলে হয়তো এত দিনে আমি সুশান্ত সিং রাজপুত হয়ে যেতাম। লোকে বলে না, ভীতুরা আত্মহত্যা করে, আমি ভীতু বলে আত্মহত্যা করতে পারিনি। বোন, ঘটনার পর বেশ কিছু দিন সমানে ফোন করত দাদার গলাটা শোনার জন্য। ওর বোধহয় মনে হত নিজেকে শেষ করে দিতে পারি আমি। এমনও হয়েছে, আমি কাঁদছি, বোনু ফোন করেছে। ওকে তো বুঝতে দেওয়া যাবে না যে কাঁদছি। স্বাভাবিক গলায় বলতাম, “হ্যাঁ বল”। বোন নিশ্চিন্ত হত। দাদাটা ওর ঠিক আছে। বেঁচে আছে।”

আজ চার মাস পর মাতৃ দিবসে সৌরভ তার যোগ্য জবাব দিলেন। সেদিনের অপমানের পরিপ্রেক্ষিতে সৌরভ মাতৃ দিবসে মা এবং বোনের সঙ্গে একটি ভিডিও বানিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন। যেখানে সাদা কাগজের উপর ফুটে উঠছে নেটিজেনদের অশ্লীল আক্রমণাত্মক কমেন্টগুলি। সৌরভের মা সেগুলি একের পর এক ক্যামেরার সামনে তুলে ধরছেন। “তোমার বংশ পরিচয় পেয়ে গেছি আমরা”, “বেজন্মা”, “এই ছেলে-মেয়ের জন্ম দিস”! একেবারে এই ভাষাতেই সেদিন এই পরিবারের প্রতি আক্রমণ চালায় নেট দুনিয়া। সৌরভের মাকে উদ্দেশ্য করে সেদিন বলা হয়েছিল, ‘কী শিক্ষা দিয়েছিস তোর ছেলে-মেয়েকে, নোংরা মহিলা’, ‘তোর ফ্যামিলিতে ওটাই চলে’! ভিডিওর শেষের দিকে আরেকটি কাগজ তুলে ধরা হয়,  ‘আপনাদের ভালবাসার জন্য অনেক ধন্যবাদ’। এরপর ‘শুভ মাতৃদিবস’ এর লেখা ফুটে উঠে কাগজে।

নেটিজেনদের সেদিনের আঘাতের পরিপ্রেক্ষিতে যেন এমনভাবেই নীরব প্রত্যাঘাত করলেন সৌরভ এবং তার পরিবার। ব্যাকগ্রাউন্ডে তখন বাজছে “যব যব মুজপে উঠা সওয়াল, মাই তেরি চুনারিয়া লহরাই”! সত্যিই তাই। সেই কঠিন পরিস্থিতিতে সৌরভকে সামলিয়েছিলেন তার মা। সৌরভ বলেন, ‘মা যদি সেদিন না আগলাত তাহলে হয়তো এত দিনে আমি সুশান্ত সিং রাজপুত হয়ে যেতাম। লোকে বলে না, ভীতুরা আত্মহত্যা করে, আমি ভীতু বলে আত্মহত্যা করতে পারিনি।’

পরিবারের এই বিপর্যয় দেখে সৌরভের বাবাও অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। সৌরভের ফ্যান ক্লাবের যে ছেলেগুলি তার সমর্থনে সেদিন কথা বলেছিল, তাদেরকেও রাস্তায় ধরে মারা হচ্ছিল। ওই সময় তাদের পাশে থাকতে পারেননি কেউ। এমনকি মা-বাবার সম্পর্ক নিয়েও নেট দুনিয়ায় কুকথার বন্যা বয়ে যাচ্ছিল। তবে সৌরভ পাশে পেয়েছিলেন নিজের বাবা-মাকে। মা তাকে সর্বদা আগলে রেখেছিলেন।

ঘটনার কয়েক দিন পর বাবা একটা মেসেজ করে বলেন, “বুবান তুই একদম এসবে কান দিস না, তুই শুধু তোর চরিত্রগুলোতেই মনটা দে। তোর এক একটা চরিত্র কিন্তু আমার এক এক বছর করে আয়ু বাড়ায়।” পরিবারের তরফ থেকে এমন সমর্থন পেয়েই নিজেকে সামলে নিয়েছিলেন সৌরভ। মাতৃ দিবসে তিনি পৃথিবীর প্রত্যেক মহিলাকে সম্মান জানালেন। তার এবং তার পরিবারের প্রতি নেটিজেনদের আচরণের কারণেই আজ নেট মাধ্যম থেকে বহু দূরে সরে গিয়েছেন সৌরভ।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Saurav Das (@i_sauravdas)

আজ সেই ভয়াবহ স্মৃতি স্মরণ করে সৌরভের মায়ের চোখে জল আসে। ভিডিওটিতে দেখা যায় সেই সময় সৌরভ সস্নেহে মায়ের কপালে একটি চুমু খান। ভিডিওর ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন, ‘Happy Mother’s Day মা। একটাই কষ্ট । তোমায় খুব কম হাসাতে পারলাম । ছোটবেলা থোক আজ পর্যন্ত । সে নিজের দোষ হোক বা অন্যের… তুমি আমার কাছে সবথেকে মূল্যবান। একদিন তোমাকে আমি খুশি করবই।’

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Saurav Das (@i_sauravdas)