‘কাহানি’র থেকেও ভালো ‘বব বিশ্বাস’! অতিগর্বে মাটিতে পা পড়ছে না অভিষেকের

Kahani Abhishek Bachchan

প্রায় ৯ বছর বাদে বড়পর্দায় ফিরছে বব বিশ্বাস (Bob Biswas)। ‘কাহানি’ (Kahani) ছবিতে যে ঠান্ডা মাথার খুনিকে দেখে শিহরিত হয়েছিলেন দর্শকরা, আজ এতো বছর পরেও তাকে বড় পর্দায় দেখার লোভ সামলাতে পারছেন না তারা। ছবিতে বাঙালি অভিনেতা শাশ্বত চট্টোপাধ্যায় ‘বব বিশ্বাস’ এর ভূমিকায় অভিনয় করে তাক লাগিয়েছিলেন। তবে এবার এই ভূমিকায় অভিনয় করছেন অভিষেক বচ্চন (Abhishek Bachchan)।

ছবিটি এখনও মুক্তি পায়নি, তবে মুক্তির আগেই ছবির সাফল্য নিয়ে নিশ্চিত অভিষেক বচ্চন। তার দাবি এই ছবিটি নাকি সেরার সেরা! ৯ বছর আগে সুজয় ঘোষ ‘কাহানি’ ছবিতে বব বিশ্বাসকে যেভাবে দেখিয়েছিলেন, তার থেকেও দারুণভাবে নাকি এই ছবিটি বানিয়েছেন তার মেয়ে। ‘কাহানি’ দেখে নিজের কাজের সঙ্গে তুলনা করে এমনটাই মনে হয়েছে অভিষেকের।

প্রথমে মনে করা হয়েছিল বব বিশ্বাসকে নিয়ে ছবি বানানো হলে সেখানেও শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়কেই রাখা হবে। তবে শেষমেষ চরিত্রের বদল হলো। শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়ের জায়গায় ছবিতে সুযোগ পেলেন অভিষেক বচ্চন। অভিষেকের লুক দেখে ইতিপূর্বে বহুল চর্চা শুরু হয়েছে নেট মাধ্যমে। ভালো-খারাপ, মিশ্র প্রতিক্রিয়া পেয়েছেন অভিষেক। ছবিটির ট্রেলার ইতিপূর্বেই প্রকাশ করা হয়েছে। এবার এই ছবির মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছেন দর্শকরা।

সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে ছবি সম্পর্কে বলতে গিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসলেন অভিষেক। তিনি জানিয়েছেন গত বছর লকডাউনের সময় তিনি ‘কাহানি’ দেখেছিলেন। তবে ততদিনে অবশ্য তার ছবির ৮০ শতাংশ কাজ হয়ে গিয়েছিল। ছবি দেখে তার মনে হয়েছে বব বিশ্বাসকে পর্দায় উপস্থাপন করার ক্ষেত্রে সুজয় ঘোষকেও ছাপিয়ে গিয়েছেন তার মেয়ে দিয়া অন্নপূর্ণা ঘোষ। অভিষেকের কথায়, “আমাদের ছবিটি বেশি ভালো। সুজয়কে শ্রদ্ধা জানিয়েই বলবো, ওর মেয়ে বেশি ভালো কাজ করেছে”।

যদিও দর্শকের একাংশের কাছে অবশ্য বব বিশ্বাস মানেই শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়। তাই সাদামাটা চেহারার ঠান্ডা মাথার খুনি বব বিশ্বাসকে নিয়ে যখন ছবি বানানোর গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে তখন থেকে তারা ভেবেই রেখেছিলেন শাশ্বতকেই ফের দেখা যাবে এই চরিত্রে। তবে শেষমেষ অভিষেককেই কাস্ট করা হয় চরিত্রে। কারও কারও মতে অভিষেকের চেহারা চরিত্রের সঙ্গে দারুণ মানিয়েছে। কেউ আবার তা মানতে নারাজ। তারা উল্টে অভিষেকের সমালোচনায় মগ্ন। তবে সিনিয়র বচ্চন অমিতাভ সোশ্যাল মিডিয়াতে ট্রেলার দেখে ছেলের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন।