প্রেমিকাকে দেখা করতে মাসে দুবার ৬০ কিমি পাড়ি দেয় এই সিংহ

সামনেই ভ্যালেন্টাইন্স ডে, বাতাসে প্রেম। প্রেমের এই সপ্তাহ উদযাপন করেন না এমন প্রেমিক প্রেমিকা বোধহয় খুব কমই আছে। ভ্যালেন্টাইন্স ডে তে কি পড়বেন, কোথায় ঘুরতে যাবেন, কি গিফট দেবেন সব লিস্ট তৈরী অনেকের। কিন্তু যারা লং ডিস্টেনশ রিলেশনে রয়েছে তাদের মন একটু বিষন্ন। যারা দূরত্ব কাটিয়ে প্রেমিকার সাথে দেখা করতে যেতে পারছেন না তারা এবার একটু এই সিংহ টির থেকে শিখুন মশাই। না না, ভুল পড়েননি আমি সিংহর কথাই বললাম। যদি প্রেমিকাকে সময় না দেওয়ার জন্য অজুহাত দেখান তাহলে এই খবর আপনার প্রেমিকা পড়লে কিন্তু আপনার খবর আছে।

আপনি এদিকে লং ডিস্টেন্স রিলেশন নিয়ে বিষন্ন অন্যদিকে এই সিংহ ৬০ কিলোমিটার পথ হেঁটে মাসে দুবার তার প্রেমিকার সাথে দেখা করতে যান। অবাক হওয়ার কিছুই নেই এটাই সত্যি। ওই যে বলে না প্রেমে অসম্ভব বলে কিছু হয় না, অনেকটা সেরকম। গুজরাতের রাজুলায় একটি সিংহের দল থাকে। সিংহ মানেই রাজা, রাজাকে আটকায় কে। নগর পরিদর্শন করতে গিয়ে দেখা হয় এক সিংহীর সাথে। ব্যাস, লাভ অ্যাট ফার্স্ট সাইট। সিংহ প্রেমে পড়ে যায় সিংহীর।

যদিও নিজের ডেরায় ফিরে আসেন সিংহটি তবুও প্রেমে মুখ থুবড়ে পরে আর উঠতে পারছিল না। দিবারাত্রি সিংহীটিকে নিয়ে স্বপ্ন দেখেছেন বোধহয়। ব্যাস প্রেমিকার থেকে আর দূরে থাকা যায়! একেবারে সঙ্গীসাথী নিয়ে মাসে দুবার করে প্রেমিকার সাথে দেখা করতে যাওয়া শুরু করলেন। আর এই গোটা বিষয়টি পর্যবেক্ষন করেছেন আমরেলির বরকুন্ডার বনকর্মীরা। ভালো করে সিংহটিকে পর্যবেক্ষন করে দেখেছেন, সিংহটি তার বন্ধুদের নিয়ে প্রায় ৬০ কিলোমিটার হেঁটে প্রেমিকার সাথে দেখা করতে যান। সিংহগুলি মূলত পূর্ব গিরি অরণ্যের পাটদা এলাকার। বর্তমানে ঘাঁটি গেড়েছে রাজুলার ডুঙ্গরে। সেখানকার অন্যান্য সিংহরা এই সিংহদের একটু সমীহ করে চলে।

পাটদা এলাকার এই সিংহদের মধ্যেই একজন সিংহীর প্রেমে পড়ে যায়। প্রেমে পড়ে দূরে থাকা কি সম্ভব তাই মাসে দুবার ৬০ কিমি হেঁটে বান্ধবীর সাথে দেখা করতে যান, সঙ্গে যায় সঙ্গী সাথীরা। তবে তারা ব্যাক্তিগত বিষয়গুলি বোঝে। ফলেই বন্ধুর সাথে গেলেও সেখানে গিয়ে বন্ধু আর তার প্রেমিকাকে একা ছেড়ে দেন তারা। সিংহটিও তার প্রেমিকার সাথে সময় কাটাতে পারে বেশ খানিকটা। ফরেস্ট অফিসারের মতে, সিংহরা যাযাবরের মতো জীবন কাটায় ফলে তাদের সাথে অন্য সিংহ বা সিংহীর বন্ধুত্ব হয়ে যায় অনেক সময়।