কীভাবে ছড়াল করোনা? শুরু হচ্ছে ভারত সহ ৬১টি দেশের নিরপেক্ষ তদন্ত

কোরোনা ভাইরাসের জেরে বিশ্বজুড়ে অব্যাহত মৃত্যু মিছিল। বিশ্বজুড়ে প্রায় পাঁচ লক্ষ মানুষ আক্রান্ত এই ভাইরাসে। কেবল ভারতেই আক্রান্তের সংখ্যা এক লক্ষ ছুঁই ছুঁই। গতবছর ডিসেম্বর মাসের শেষ দিকে চিনের ইউহান প্রদেশ থেকেই এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে। তারপর থেকেই বিশ্ব জুড়ে শুরু হয় তরজা।

কারোর মতে উহান ফিশ মার্কেট থেকে এই ভাইরাস ছড়ায় আবার কারোর মতে চিনের ভাইরাস ল্যাবরেটরি থেকেই ছড়িয়ে পড়ে এই ভাইরাস। ইতিমধ্যেই চিনের দিকে ষড়যন্ত্রের আঙ্গুল তুলেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

চিনের বিরুদ্ধে তদন্তও শুরু করে দিয়েছে আমেরিকা। এমনকি চিনের পক্ষ নেওয়ার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকেও হুশিয়ারি দিয়েছেন মার্কিন রাষ্ট্রপ্রধান ট্রাম্প। হ্ন কে অনুদান দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে আমেরিকা। এবার আমেরিকার সাথে এই দাবি তুললো বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলিও।

করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া কি আসলে প্রকৃতির খেলা? নাকি এর পেছনে আছে কোনো ষড়যন্ত্র? এই সত্যিটা বাইরে আনতেই অস্ট্রেলিয়া এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের তরফ থেকে নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি জানানো হয় অনেক আগেই। শুধু চিন নয়, ওয়ার্ল্ড হেল্থ অর্গানাইজেশন বা হ্ন এর ভূমিকা নিয়েও তদন্তের দাবি তুলেছে তারা। এবার সেই দাবিকে সমর্থন করেছে বিশ্বের ৬১ টি দেশ, যাতে সামিল আছে ভারতও।

এখনও পর্যন্ত বিশ্বের কোরোনা আক্রান্ত দেশগুলির কাছে তদন্তের সমর্থন পেতে খসরা প্রস্তাব পেশ করেছে অস্ট্রেলিয়া এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন যেখানে বর্তমান কোরোনা ভাইরাস পরিস্থিতির বিষয় নিরপেক্ষ, স্বাধীন ও বিস্তারিত ভাবে তদন্তের আহ্বান জানানো হয়েছে।

এই আহ্বানে ইতিমধ্যেই ভারত ছাড়াও জাপান, ব্রিটেন, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া, ব্রাজিল এবং কানাডা এর মতন শক্তিশালী রাষ্ট্র শক্তিগুলো সমর্থন জানিয়েছে। সোমবার থেকে শুরু হওয়া ৭৩তম ওয়ার্ল্ড হেলথ অ্যাসেমব্লির সভাতে এই বিষয় আলোচনা বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে যেখানে অংশ নেবে ভারতও।

এই প্রস্তাবে কি বলা হয়েছে?

মূলত এই প্রস্তাবে কোরোনা ভাইরাস এর ফলে যে বিশ্ব মহামারি পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তা নিয়ে বিস্তারিত তদন্তের প্রস্তাব তোলা হয়েছে। প্রস্তাবে আরও বলা হয়েছে যে উপযুক্ত সময়ে এই তদন্ত শুরু হওয়া দরকার এবং যদি প্রয়োজন হয় তাহলে হ্ন যেন এই বিষয় সদস্য রাষ্ট্র গুলির সাথে পরামর্শ করে।

শুধু তাই নয় এই ভাইরাসের জেরে সম্পূর্ণ বিশ্বে যেরকম অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে তাও খতিয়ে দেখার দাবি জানানো হয়েছে। এই ভাইরাসের প্রভাব আটকাতে বিশ্বের দেশগুলো কতটা নিরপেক্ষ হয়ে পদক্ষেপ নিচ্ছে সেই বিষয়ও তদন্ত করা হবে।তবে প্রস্তাবে সরাসরি চিনকে কিছু বলা হয়নি।

যদিও যখন সর্বপ্রথম অস্ট্রেলিয়া এই তদন্তের দাবি দাবি জানায় তখন হ্ন কেই কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার বিদেশ মন্ত্রী মেরিস পেইন। তখন তিনি করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ওপর তদন্তের ভার তুলে দেওয়ার সাথে তিনি শিকারীকে শিকার বন্ধ করে তদন্তের দেখভাল করার ঘটনার সাথে তুলনা করেন।তিনি এও বলেন যে এই মহামারি আটকাতে হ্ন এর প্রথমেই কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়া উচিত ছিল। তিনিই তখন আন্তর্জাতিক তদন্তের প্রস্তাব রাখেন এবং সকলের সহযোগিতা চান।