টাটকা মাছ আর বাসি মাছ চেনার ৫ টি সহজ উপায়

‘মাছে ভাতে বাঙালির আমিষের জন্য খাদ্য তালিকায় মাছ থাকবেই, এটাই যৌক্তিক। তাই বাজারে আমাদের প্রায়ই মাছ কিনতে যেতে হয়। মাছ কিনতে গিয়ে ঠকেননি বা মাছের দোকানদার আপনাকে পঁচা দেয়নি, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। আজকাল তো আবার ফরমালিনে ডুবানো মাছ বিক্রি হয়। যতই ফরমালিন বা রঙ দেয়া হোক না কেন, টাটকা ও ওষুধ মুক্ত মাছ চিনে নেওয়ার জন্য কৌশল আছে। এই কৌশলগুলো প্রয়োগ করতে পারলে জীবনে আর কখনো মাছ কিনে ঠকতে হবে না আপনাকে। যারা বাজার করেন তাদের জন্য বিষয়টা গুরুত্বপূর্ণ না হলেও তারা এ বিষয় গুলো পর্যবেক্ষন করলে ভাল মাছ চিনতে ভুল হবে না নিশ্চিত।

Rui Fish
Source

১. মাছের চোখ

টাটকা মাছের চোখ সবসময় স্বচ্ছ হবে। দেখলে মনে হবে মাছটি জীবন্ত। সময়ের সাথে সাথে এই চোখ ঘোলাটে, মৃত হয়ে আসে। যত সময় যায়, চোখ তত নিষ্প্রাণ। ফরমালিনে মাছের মাংস পচে না ঠিকই, কিন্তু চোখের জীবন্ত ভাব নষ্ট হওয়া ঠেকানো যায় না। চোখ দেখলেই চিনে নিতে পারবেন তাজা মাছ। টাটকা বা তাজা মাছের চোখ উজ্জল ,স্বচ্ছ ও ফোলা থাকে। যখন মাছ বাসি হতে থাকে তখন চোখ ঘোলা হয় এবং একসময় গোলপী বা লাল রং ধারণ করে। মাছ যতই বাসী হতে থাকে চোখ ততই গর্তের ভিতর ঢুকে যায়।

Source

২. মাছের গন্ধ

তাজা মাছের গন্ধ হবে জলের মত, সামুদ্রিক মাছ হলে সমুদ্রের মত। শসার গন্ধের সাথেও অনেকটা মিল আছে এই গন্ধের। যে মাছটি কিনছেন সেই মাছটি থেকে এইরকম গন্ধ না এলে সেই মাছটি তাজা মাছ নয়।তাজা মাছে সহনীয় গন্ধ থাকে। তাজা মাছে কোন ধরণের পচা ও আশটে বা অসহনীয় গন্ধ থাকে না। মাছ ধরার পর যত সময় অতিবাহিত হবে মাছের আশটে গন্ধের তীব্রতা বাড়তে থাকবে। এ জন্য মাছকে ধরার সাথে সাথে বরফে ঢেকে রাখতে হয়।

Source

৩. মাছের শরীর ও আইশ

মাছের শরীর চকচকে আর উজ্জ্বল রূপালি রঙের হয়। কিন্তু অনেকক্ষেত্রে দেখা যায় মাছ চকচকে রূপালি রঙের বদলে হলদে, লালচে রঙের হয়। এরকম হলেই বুঝে নেবেন যে মাছটি অনেকদিনের পুরনো। তাজা মাছ সবসময় চকচক করবে, সময় যাওয়ার সাথে সাথে চকচকে ভাব একেবারেই ম্লান হয়ে যাবে তা সে যতই ফরমালিন দেয়া হোক না কেন। আইশ পর্যবেক্ষন করার সময় আপনি মাছের মাথার শেষ অংশ থেকে মধ্যেবর্তী অঞ্চলে আংগুল রেখে মাছের শরীরে উপর থেকে লেজ পর্যন্ত টান দিবেন। আংগুলের টান দিতে গিয়ে যদি দেখেন মাছের আইশ শরীর থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে তবে বুঝবেন মাছ টি বাসি। আর যদি দেখেন আইশ শরীর থেকে বের হচ্ছে না অথবা কয়েকবার টান দেওয়ার পর একটা দুইটা আইশ আংগুলের টানের সাথে বের হচ্ছে তবে মাছটি ভাল। মাছ হাতে নিলে যদি পিছলে যায় তাহলে বুঝবেন মাছটি টাটকা।

৪. মাছের কানকো

কানকো দেখে মাছ চেনার ভালো উপায় হলেও আজকাল মাছ ব্যবসায়ীরা কানকোতে রঙ মিশিয়ে রাখেন। তাই শুধু কানকো দেখে মাছ কিনলে বোকামি হবে। টাটকা মাছের কানকো হবে তাজা রক্তের রঙের এবং পিচ্ছিল।

Source

৫. মাংস

মাছের মাংস শক্ত,স্হিতিস্থাপক মানে রাবারের মত থাকে এবং মাছের মাংস অস্থি হতে মানে মাছের যে কাটা বা হাড় হতে আলাদা হবে না। কাটা অথবা হাড় মাছের মাংসের সাথে অতন্ত্য জোড়ালো ভাবে লেগে থাকবে।

Source

কাটা মাছ টাটকা কি না বুঝবেন কীভাবে ?

  • ভালো করে লক্ষ্য করুন, মাছের আশেপাশে কোনো সাদা বা ফ্যাকাশে রঙের জল আছে কিনা। যদি থাকে, বুঝবেন মাছ ভালো নয়। টাটকা মাছের আশেপাশে স্বচ্ছ জল থাকবে।
  • ছোট মাছের পেট ফাঁক করে যদি দেখেন ভিতরের পটকাটি লাল ও ভেজা, তাহলে বুঝবেন তাজা মাছ। পুরনো মাছের পেটের ভেরতটা শুকনো হয়।
  • কেউ কেউ মাছের পেটি কিনে থাকেন। অল্প চাপ দিয়ে দেখুন, যদি কাঁটা থেকে মাছটি আলাদা হয়ে যায় তবে জানবেন সেটি টাটকা মাছ নয়।
Source

টাটকা চিংড়ি মাছ চিনবেন কীভাবে ?

চিংড়ি মাছের ক্ষেত্রে কিন্তু পদ্ধতি ভিন্ন। যদি চিংড়ি মাছের খোসা শক্ত আর ক্রিসপি থাকে, তাহলে মাছ তাজা। যদি খোসা নরম আর নেতিয়ে পড়া হয়, তাহলে মাছ ভালো নয়।চিংড়ি মাছ হাতে নিতে গেলে সহজেই মাথা ভেঙে যায় কিনা দেখুন। যদি তা হয় তাহলে বুঝবেন মাছ টাটকা নয়।

শিং, মাগুর, শোল মাছ চিনবেন কীভাবে ?

জিয়াল মাছ যেমন শিং, মাগুর, শোল ইত্যাদি কিনতে গেলেও সাবধান। আজকাল দোকানিরা মরা জিয়াল মাছকেও টাটকা বলে ধরিয়ে দেন। জিয়াল মাছ যদি ট্রের মধ্যে ছটফট করে তাহলে সেই মাছ কিনুন। আগে থেকে বের করে ট্রে-তে সাজিয়ে রাখা মাছ নয়।

আমাদের প্রতিটি পোস্ট WhatsApp-এ সুনিশ্চিত করতে ⇒ এখানে ক্লিক করুন