গত ৩০ বছর ধরে অক্ষত রয়েছে শচীনের ৫ টি বোলিং রেকর্ড

শচীন তেন্ডুলকর ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাসে তো বটেই, পুরো বিশ্বের ক্রিকেটে একটি অবিস্মরণীয় নাম। ক্রিকেট কে যদি ধর্ম বলে মানা হয় তাহলে সেই ধর্মের ভগবান নিঃসন্দেহে শচীন ব্যাট হাতে তিনি বোলার দের ত্রাস হয়ে উঠে বিশ্ব ক্রিকেটে একের পর এক রেকর্ড তৈরি করেছেন যেগুলোর অধিকাংশ এখনও কেই ভাঙতে পারেননি। কিন্তু বল হাতেও তিনি কিছু অসাধারণ রেকর্ড তৈরি করেছেন যেগুলো অনেকেই জানেননা। তার জন্মদিনে দেখে নেওয়া যাক বল হাতে তার তৈরি করা কিছু রেকর্ড।

১. শেষ ওভারে ৬ রানের কম রান দিয়ে ২ বার ম্যাচ জেতানো
শচীন তেন্ডুলকর একদিনের ক্রিকেটে শেষ ওভারে ৬ রান ডিফেণ্ড করে ভারতকে দু বার ম্যাচ জিতিয়েছিলেন। ১৯৯৩ সালে হিরো কাপের সেমিফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তিনি প্রথমবার ভারতকে জেতান।

আরও পড়ুন :- ৪ ক্রিকেটার যারা ভেঙে দিতে পারেন শচীনের সেঞ্চুরির রেকর্ড

এর পর ১৯৯৬ সালে টাইটান কাপে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে শেষ ওভারে বল করার দায়িত্বটা তিনি নিজেই নিয়েছিলেন। প্রথম বলেই অস্ট্রেলিয়ার শেষ উইকেট নিয়ে ভারতকে ৫ রানে সেই ম্যাচ জিতিয়েছিলেন শচীন।

২. একদিনের ক্রিকেটে ৪ উইকেট নেওয়া তরুনতম বোলার
শচীন তেন্ডুলকর ১৯৮৯ এ নিজের ক্রিকেট কেরিয়ার শুরু করলেও বল হাতে তাঁকে প্রথম দেখা গিয়েছিল ১৯৯০ সালে। টিম ইন্ডিয়া সেই বছর তিনটি ম্যাচের একদিনের সিরিজ খেলেছিল। প্রথম ম্যাচে জেতার পর ভারতীয় টিম ০-১ এ এগিয়ে থাকলেও পরের ম্যাচে টসে ভারতীয় দল হেরে যায়। সেই ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে শচীন তেন্ডুলকরের বলের ফিগার ছিল ৯-০-৩৯-২।

তার পর শারজাহ তে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে শচীন ৩৪ রান দিয়ে ৪ উইকেটে নেন। সেই সময় শচীন তেন্ডুলকরের বয়স ছিল মাত্র ১৮ বছর ১৮১ দিন। ২০০১ সালের পর্যন্ত একদিনের ক্রিকেট ৫ উইকেট নেওয়া দ্বিতীয় তরুণতম খেলোয়াড় ছিলেন শচীন তেন্ডুলকর। অবশ্য বর্তমানে এই তালিকায় তিনি ১০ম স্থানে আছেন।

৩. একই মাঠে ২বার ৫ উইকেট

শচীন প্রথম ৫ উইকেট নেন ১৯৯৮ সালে কোচিতে হওয়া পেপসি ট্রি সিরিজে। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে এই ম্যাচে তেন্ডুলকর ৩২ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেন। এই উইকেট গুলির মধ্যে ছিল ড্যানিয়েল মার্টিন, টম মুডি, ড্যারেন লেহম্যান এবং অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভ ওয়াহ। যদিও ব্যাট হাতে এই ম্যাচে তিনি ৮ রানের বেশি করতে পারেননি। কিন্তু ভারতের ৩১০ রানের টার্গেটের জবাবে তেন্ডুলকরের এই উইকেটগুলো ম্যাচ ভারতকে ম্যাচ জিততে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন :- শচীনের ৩০ টি রেকর্ড যেটা আজ পর্যন্ত কেউ ভাঙতে পারেনি

পরবর্তীকালে একই মাঠে পাকিস্থানের বিরুদ্ধে ৫০ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেন। এই পাঁচটি উইকেটের মধ্যে ছিল মোহাম্মদ সামি, মোহাম্মদ হাফিজ, শাহিদ আফ্রিদি, আব্দুল রাজাক এবং অধিনায়ক ইনজামাম উল। এই ম্যাচে ভারতীয় দল ৮৭ রানে জেতে।

৪. সর্বকনিষ্ঠ ও বয়স্ক বোলার
শচীন টেন্ডুলকার ২৪ বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে রাজত্ব করেছেন। ক্যারিয়ারের অভিষেকেই কনিষ্ঠতম খেলোয়াড় হিসাবে উইকেট তুলে নিয়েছিলেন তিনি। ১৯৯০ সালে শ্রীলংকার বিরুদ্ধে তিনি (১৭ বছর ২২৪ দিনে) প্রথম উইকেট নিয়েছিলেন রওশন মহানামাকে আউট করে। এই ম্যাচে শচীন টেন্ডুলকার ৫৩ রান দিয়ে দুটি উইকেট পেয়েছিলেন।

এমনকি তার অবসরের সময় ৪০ বছর বয়সেও উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। শচীন তেন্দুলকর টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে একমাত্র খেলোয়াড় যার এই রেকর্ড রয়েছে। নিজের টেস্ট ক্যারিয়ারের ২০০ টি ম্যাচে ৪৬ টি উইকেট নিয়েছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন :- ৩ ভারতীয় ক্রিকেটার যাদের নামে গিনিস রেকর্ড আছে

শচীন বিদেশ সফরে ২০ বছর বয়সের আগেই টেস্ট ম্যাচে ৪ টি উইকেট তুলে নিয়েছিলেন। মারভ হিউজস, অ্যালান বর্ডার, মার্ক টেলর এবং অ্যান্ড্রু হডসন ছিলেন টেস্ট ক্রিকেটে শচীনের প্রথম ৪টি উইকেট।

৫. এশিয়া কাপে সর্বাধিক উইকেট নেওয়া ভারতীয় স্পিনার
একজন স্পিনার এসবের এশিয়া কাপে সর্বাধিক উইকেট এর রেকর্ড রয়েছে শচীনের ঝুলিতে। শচীন টেন্ডুলকার ক্রিকেট ক্যারিয়ারে কখনোই বোলিং এর ধারাবাহিকতা বজায় রাখেন নি। কিন্তু ২০০৪ সালে এশিয়া কাপ চলাকালীন প্রতিটি ম্যাচে বোলিং করেছিলেন। ১২.৯১ গড়ে ৬ ম্যাচে অসাধারণ বল করে ১২টি উইকেট নিয়েছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন :- ক্রিকেটের এই ১০টি রেকর্ড কোনদিন কারোর পক্ষে ভাঙা সম্ভব নয়

এই সময় তিনি ৫ ম্যাচে ১২টি উইকেট তুলে নেন যা এশিয়া কাপে কোন ভারতীয় স্পিনারের সর্বাধিক উইকেট। ফাস্ট বোলারের কথা বললে, ইরফান পাঠান ১৪টি উইকেট পেয়েছেন।