কোহলি এবং পন্থ ভেঙে দিতে পারে ধোনির এই ৪টি রেকর্ড

ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন ক্যাপ্টেন এমএস ধোনি ক্রিকেটের দুনিয়ায় অন্যতম একজন সেরা খেলোয়াড়। ‘ক্যাপ্টেন কুল’ তাঁর অসাধারণ পারফরম্যান্সের মধ্যে দিয়ে লক্ষ লক্ষ মানুষের মন জয় করেছেন। ২০০৪ সালে ক্রিকেটের জগতে অভিষেক হয় তাঁর। তাঁর মন মুগ্ধময় ব্যাটিং এবং অতুলনীয় অধিনায়কত্বর জন্য গোটা বিশ্বে লক্ষ লক্ষ ক্রিকেটপ্রেমীর মন বার বার জয় করেছেন তিনি। ভারতকে ২০০৭-র টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়নশিপ ও ২০১১-র ৫০ ওভারের বিশ্বকাপ দেওয়া মহেন্দ্র সিং ধোনিকে এ দেশ তথা বিশ্বের সফলতম অধিনায়কের মর্যাদা দেওয়া হয়।

২০০৭ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। এই সময়ে ক্রিকেটের সবকটি ফর্ম্যাটে ৮২৯ জন ব্যাটসম্যানকে আউট করার পাশাপাশি ওয়ান ডে-তে ১০ হাজারেরও বেশি রান করেছেন। ভারতের হয়ে ৯৮টি ওয়ান ডে ম্যাচও খেলেছেন এমএস। যা দেশের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বাধিক। ক্রিকেটের ইতিহাসে এমএস ধোনির নামের পাশে খোদাই করা আছে অনেক রেকর্ড যা আজীবন রয়ে যাবে। তবে কিছু কিছু রেকর্ড যা ধোনির নামে আছে, তা ভবিষ্যতে হয়ত ভেঙে যেতে পারে। কোন কোন এমএস ধোনির হাতে থাকা প্রধান রেকর্ডগুলি যা শীঘ্রই অন্য কারোর হতে পারে?

১. ক্যাপ্টেন হিসাবে সর্বাধিক আন্তর্জাতিক ম্যাচ

২০০৭ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এমএস ধোনি প্রথম ভারতীয় দলের অধিনায়ক হিসেবে খেলেন। তবে অধিনায়ক হিসেবে তাঁর ক্যারিয়ারের শুরুর দিকটা খুবই সাধারণ ছিল। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে চতুর্থ ম্যাচের আগে পর্যন্ত একটি ম্যাচও ভারতকে জেতাতে পারেননি তিনি। তবে তারপর থেকেই অধিনায়ক হিসেবে নিজের দক্ষতা বাড়াতে শুরু করেন তিনি। ধোনি এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দিয়ে ভারতকে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ জিতিয়েছেন। ২০১৮ সালে অধিনায়ক হিসাবে ধোনি তাঁর শেষ আন্তর্জাতিক গেম খেলে ফেলেছেন। ভারতীয় দলের ক্যাপ্টেন হিসেবে তিনি সব মিলিয়ে মোট ৩৩২ ম্যাচ খেলেছেন।

তবে, ধোনির এই রেকর্ডটি অদূর ভবিষ্যতে নিজের নামে করে নিতে পারেন বিরাট কোহলি। ৩১ বছর বয়সী ভারতীয় দলের বর্তমান ক্যাপ্টেন বিরাট কোহলি এখনও পর্যন্ত ১৮১ টি ম্যাচে ভারতকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। ২০২৩ সালের বিশ্বকাপে ভারতীয় দলকে তিনিই নেতৃত্ব দেবেন বলে আশা করা যায়। বর্তমানে বছরে প্রায় ৫০ থেকে ৬০ টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ হয়ে থাকে। বিরাট কোহলি যদি এই ম্যাচ গুলির ৮০% ম্যাচ খেলে তবে তিনি সহজেই ধোনির রেকর্ডটি ভেঙে দিতে পারেন।

২. ভারতীয় উইকেট কিপার হিসেবে দ্রুততম সেঞ্চুরি

মহেন্দ্র সিং ধোনি তাঁর প্রথম সেঞ্চুরিটি করেছিলেন পাকিস্তানের বিরুদ্ধে। ধোনি তাঁর পঞ্চম ম্যাচেই মাত্র ৮৮ বলে ১০০ রানের মাইলফলকে পৌঁছেছিলেন। তবুও এত দ্রুত সেঞ্চুরি করা তখনকার সময়ে বিদ্যুৎ বেগে মনে হলেও এখন তা এভারেজ। বর্তমান ভারতীয় উইকেট কিপারের তালিকা যারা রয়েছেন তাঁরা হলেন ঋষাভ পান্ত, ঈশান কিশান এবং সঞ্জু স্যামসন। প্রত্যেকেই ধোনির এই রেকর্ডটি ভাঙতে সমানভাবে সক্ষম।

আরও পড়ুন :- ৩ ভারতীয় ক্রিকেটার যাদের নামে গিনিস রেকর্ড আছে

তবে, এই রেকর্ডটি ভাঙার যোগ্য প্রার্থী যদি কেউ হন তাহলে সে ঋষভ পন্থ। দিল্লির এই ব্যাটসম্যানের আইপিএলে ১৬২ এরও বেশি স্ট্রাইক রেট। ধোনির থেকেও আরও ভাল রেকর্ড আমরা অদূর ভবিষ্যতে পন্থের ব্যাট থেকে দেখতে পারি।

৩. টি-টোয়েন্টি ক্যাপ্টেন হিসাবে সর্বাধিক জয়

এমএস ধোনি ভারতীয় দলের দ্বিতীয় অধিনায়ক যিনি টি-টোয়েন্টিতে ভারতকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। ধোনির নেতৃত্বে ভারত ২টি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলেছিল এবং তার মধ্যে একটিতে ভারত জেতে। ধোনি ৭২টি ম্যাচে ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, যার মধ্যে তিনি ৪১ টি ম্যাচ জিতেছিলেন। তবে ক্রিকেটের ইতিহাসে এই রেকর্ডটি ভাঙ্গা সব থেকে সহজ।

আরও পড়ুন :- সেরা অধিনায়ক কে ধোনি নাকি সৌরভ? প্রকাশ্যে এলো সমীক্ষার ফলাফল

যেখানে দুটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আগামী দুই বছরে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে, সেখানে ভবিষ্যতে অনেকগুলি টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ম্যাচ আশা করা যেতে পারে। ইতিমধ্যেই অধিনায়ক হিসেবে ২২ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ জিতেছেন বিরাট কোহলি। তাই খুব তাড়াতাড়ি ধোনির এই রেকর্ড ভাঙ্গার সম্ভাবনা রয়েছে বিরাটের। যদিও কেন উইলিয়ামসন অধিনায়ক হিসাবে ১৯ টি ম্যাচ জিতেছেন এবং অ্যারন ফিঞ্চ ১৮ টি। এরা দুজনেই ধোনির রেকর্ড টি ভাঙতে সমান ভাবে সক্ষম।

৪. ক্যাপ্টেন হিসাবে সর্বাধিক আন্তর্জাতিক ছয়

মহেন্দ্র সিং ধোনি বিশেষ করে লাস্ট বলে ৬ মারার জন্য সুপরিচিত। ক্রিকেট প্রেমীরা কোনও দিনও ভুলতে পারবে না ২০১১ সালের বিশ্বকাপে লাস্ট বলে তাঁর ছক্কা মারা। এমএস ধোনিকে তাই অনেকেই  ডেথ ওভার বিশেষজ্ঞ বলেও চেনেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অধিনায়ক হিসেবে ২১১ বার ছক্কা মেরেছেন তিনি।

আরও পড়ুন :- ক্রিকেটের ইতিহাসে সেরা ৫ উইকেটরক্ষক! তালিকায় ধোনির স্থান কত?

তবে বর্তমানে সবাই যেভাবে মারকুটে ব্যাটিং করছে তাতে ধোনির এই রেকর্ড অদূর ভবিষ্যতে অন্য কারোর নামে হয়ে যেতে পারে। অ্যারন ফিঞ্চ, ডেভিড ওয়ার্নার এবং বিরাট কোহলি এই রেকর্ড সহজেই নিজের নামে করে নিতে পারেন। তবে, সর্বশেষে বলা যেতে পারে ভারতীয় ক্রিকেটে এমএস ধোনির অবদান অপরিসীম এবং এই রেকর্ড গুলি অন্য কারোর নামে হয়ে গেলেও তাঁর মর্যাদায় কোন ফারাক আসবেনা। ক্রিকেটের ইতিহাসে এমএস ধোনি একটি কিংবদন্তি নাম হয়েই থাকবে।