অর্ণব গোস্বামী সম্পর্কে এই তথ্যগুলো অনেকেই জানেন না

বর্তমানে ভারতের সংবাদমাধ্যমের জগতে একটি অতি পরিচিত নাম অর্নব গোস্বামী(Arnab Goswami)।তার প্রতিষ্ঠিত চ্যানেল রিপাবলিক টিভির (Republic TV) কথা সকলেই জানেন।বারংবার নানান বিষয়ের ক্ষেত্রে তার সাংবাদিকতা জনগণের সামনে আসে। কিন্তু এই অর্নব গোস্বামীকে কতটা চেনেন আপনি? একসময় টেলিগ্রাফ থেকে আজকে রিপাবলিক টিভি। জেনে নিন “অচেনা অর্নব” কে।

১. কেরিয়ার শুরু :- অর্নব গোস্বামী ১৯৯৪ সালে “দা টেলিগ্রাফ (The Telegraph)” এর সাথে নিজের কেরিয়ার শুরু করেছিলেন এবং প্রায় তিন বছর সেখানে কাজ করেছিলেন। এরপর তিনি দিল্লিতে “NDTV 24*7” এর সাথে যুক্ত হন এবং কিছু সময় পরেই তিনি এই চ্যানেলের নিউজ এডিটর হয়ে ওঠেন।

২. পড়াশুনা :- স্কুলজীবনের পড়াশোনা শেষে অর্নব গোস্বামী দিল্লির হিন্দু কলেজে সমাজবিজ্ঞান(Sociology) নিয়ে অনার্স করেন।১৯৯৪ সালে তিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্ট অ্যানটনি কলেজ থেকে সোশিও অ্যানথ্রোপলজি (Socio Anthropology) নিয়ে মাস্টার্স করেন। মেধার জন্য তিনি অক্সফোর্ডে ফেলিক্স স্কলার হিসেবে মনোনীত হন। কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিডনি সাসেক্স কলেজে আন্তর্জাতিক স্টাডিজ বিভাগে ভিজিটিং ডি সি পাভেট ফেলো পদেও সম্মানিত হয়েছিল অর্ণবকে।

৩. অর্ণবের লেখা বই :-  ২০০১ সালে ১১ ই সেপ্টেম্বরের হামলার পরপরই অর্ণব গোস্বামী “কমব্যটিং টেরোরিজম: আ লিগাল চ্যালেঞ্জ(Combating Terrorism:A legal challenge)” নামের একটি বই লেখেন।এই বইতে তিনি সন্ত্রাসবাদ ও তার বিরুদ্ধে প্রণীত আইনের ফাকগুলি তুলে ধরেন এবং পশ্চিমী দেশের সাথে (বিশেষত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে) ভারতের সন্ত্রাসবিরোধী আইনের তুলনা করেন।

৪. অর্ণবের পরিবার :- অর্নব গোস্বামীর বাবা মনোরঞ্জন গোস্বামী একজন প্রাক্তন আর্মি অফিসার এবং বিজেপি সদস্য ছিলেন।তিনি গুয়াহাটি থেকে বিজেপির প্রার্থী হিসেবেও দাড়ান। অর্ণবের ঠাকুরদা রজনীকান্ত গোস্বামী ছিলেন কংগ্রেসের নেতা এবং তার দাদু ছিলেন আসামের কমিউনিস্ট পার্টির নেতা।

৫. প্রথম সাক্ষাত্‍কার :- সাংবাদিক হিসেবে অর্নব গোস্বামী সর্বপ্রথম কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন।

৬. অনুপ্রেরণা :-  অর্নব গোস্বামীর জীবনের সবথেকে বড় অনুপ্রেরণা ছিলেন ভূপেন হাজারিকা। এমনকি তিনি নিজে একবার কলকাতায় এসেছিলেন শুধুমাত্র তার গলায় গান শোনার জন্য।

৭. গুড টাইমস (Good Times) নামে একটি উত্তর ভারতীয় লাইফস্টাইল পত্রিকায় ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে এই পত্রিকার কভারে অর্নব গোস্বামীকে দেখা যায়।

৮. অর্নব গোস্বামী বিবিসি(BBC) এবং সিএনএন(CNN) – এই দুটি সংবাদমাধ্যমের খুব বড় ভক্ত ছিলেন। গুড টাইমস পত্রিকায় সাক্ষাৎকারে তিনি নিজেই বলেন যে তিনি চান একদিন আমাদের দেশেও সেরকম একটি চ্যানেল থাকবে যা সারা বিশ্বে সংবাদ প্রেরণ করবে। তিনি এই বলেন যে সেরকম হলে তিনি সেখানে একটি ভূমিকা পালন করতে চান।

৯. ইন্ডিয়া টুডের প্রতিবেদন অনুসারে অর্নব গোস্বামী মাইটি পাওয়ার পাওয়ার তালিকায় ৪৬ তম স্থান লাভ করেন। দুর্নীতি, গোয়েন্দা ও সন্ত্রাসের মতো সামাজিক বিষয়ে বিতর্কের কারণে তাকে মনোনীত করা হয়। তালিকায় অরবিন্দ কেজরিওয়াল সহ্য আরও অনেকের থেকে তিনি এগিয়ে আছেন।

১০. ১০ বছর টাইমস নাও(Times Now) তে কাজ করার পর তিনি ২০১৬ সালে সেই কাজ ছেড়ে নিজের চ্যানেল “রিপাবলিক টিভি” তৈরি করেন।

১১. অর্নব গোস্বামী রিপাবলিক টিভির ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সহ প্রতিষ্ঠাতা। ২০১৭ সালে যখন রিপাবলিক টিভি চালু হয় তখনই চ্যানেলের ওয়েবসাইট থেকে তিনি লাইভ আসেন।

১২. স্টার ইন্ডিয়ার “হটস্টারে” লাইভস্ট্রিম হওয়া প্রথম সংবাদ চ্যানেল রিপাবলিক টিভি।

১৩. রিপাবলিক টিভির সিএফও(CFO) এস সুন্দরম টাইমস নাও এরও প্রাক্তন সিএফও ছিলেন।

১৪. রিপাবলিক টিভি একটি “ফ্রি টু এয়ার” চ্যানেল। এর মানে কেবল অপারেটররা এটি ফ্রি তেই পাবেন এবং বেসিক চ্যানেল প্যাকেজে এটি অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

১৫. ২০১০ সালে অর্নব গোস্বামী রামনাথ গোয়েনকা আওয়ার্ড ফর জার্নালিস্ট অফ দা ইয়ার জেতেন।